উপস্থিত বুদ্ধি বৃদ্ধির উপায়, অবলম্বন, পদ্ধতি, টেকনিক

আসসালামু প্রিয় পাঠকগণ! আশা করি সবাই আল্লাহ’র অশেষ রহমতে ভালো আছেন। আজকে আমি আপনাদের মাঝে হাজির হয়েছি নতুন আরেকটি পোস্ট নিয়ে (উপস্থিত বুদ্ধি বৃদ্ধির উপায়)। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে আজকের পোস্টটি। চলুন শুরু করা যাক আজকের পোস্ট।

উপস্থিত বুদ্ধি বৃদ্ধির উপায়, অবলম্বন, পদ্ধতি, টেকনিক

একজন পরিপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে আপনি নিজেকে তখনই তৈরি করতে পারবেন যখন আপনি আপনার বুদ্ধিমওা কে সুষ্ঠু ভাবে কাজে লাগাতে পারবেন। আমাদের চারপাশে তাকালে চোখে পড়বে সেসব ব্যক্তিরাই জীবন কে সুন্দর ভাবে উপভোগ করছে যাদের মধ্যে এমন কিছু বিশেষ গুণাবলি রয়েছে যে গুণ গুলো কে কাজে লাগিয়ে তারা তাদের জীবন কে সুন্দর ও পরিপূর্ণ ভাবে গড়ে তুলেছে।

তাই আপনি যদি নিজেকে সুন্দর ও পরিপূর্ণ ভাবে গড়ে তুলতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে আপনার বুদ্ধিমওা ও উপস্থিত বুদ্ধি জাগিয়ে তুলতে হবে। তাই আজকে আমি আপনাকে দেখাবো এমন কিছু কৌশল যার মাধ্যমে আপনি আপনার উপস্থিত বুদ্ধি কে জাগ্রত কিংবা বাড়াতে পারবেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক সেসব উপায় গুলো।

১) অন্যের কাজকে অনুসরণ করা (উপস্থিত বুদ্ধি বৃদ্ধির উপায়)

আপনি যদি কোনো কাজে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে সেই কাজটি আপনার পক্ষে কিছুটা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। আপনি যদি উক্ত কাজগুলো সম্পর্কে বাকিদেরকে অনুসরণ করেন এবং তারা কিভাবে কাজটি করছে তা থেকে অবিজ্ঞতা নেন তাহলে আপনার মধ্যে উক্ত কাজ সম্পর্কে কিছুটা আইডিয়া চলে আসবে।

যার ফলে আপনি সে অবিজ্ঞতা কে কাজে লাগাতে পারবেন নিজের কাজে। তাই আমাদের উচিত সকল সময়ে অন্য জনের কাজকে অনুসরণ করা এবং বাকিরা কিভাবে সেই কাজটি সম্পন্ন করছে সেটি লক্ষ্য করা। এর ফলে আপনার মধ্যে এমন কিছু অভিজ্ঞতা সৃষ্টি হবে যেটিকে আপনি আপনার কাজে লাগিয়ে কাজে সহজতর করতে পারবেন। এতে আপনি আপনার বুদ্ধিমওা কে বাড়াতে পারবেন।

২) মানুষের সমস্যাবলী থেকে শিক্ষা নেওয়া (উপস্থিত বুদ্ধি বৃদ্ধির উপায়)

আমরা আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে নানা ধরনের সমস্যায় জর্জরিত হয়। এমনকি ওই একই সমস্যায় আরো বিভিন্ন লোকেরা ও জর্জরিত থাকে। যার ফলে আপনি যদি এসব সমস্যা গুলো অন্যরা কিভাবে মোকাবিলা করছে তা থেকে ধারণা নেন তাহলে আপনি আপনার সমস্যা কে অতি দ্রুত ও সর্বোত্তম পন্হায় সমাধান করতে পারবেন। তাই আমরা আমাদের চারিপাশে খেয়াল রাখবো এবং তারা যেকোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে তা কিভাবে সমাধান করে তা লক্ষ্য রাখা। এর ফলে আমরা যখনই ওইসব সমস্যার সম্মুখীন হবো তা পূর্ব অভিজ্ঞতা কে কাজে লাগিয়ে অতি সহজেই সমাধান করতে পারবো। এতে আপনার উপস্থিত বুদ্ধি বৃদ্ধি পাবে।

৩) প্রতিনিয়ত নতুন কিছু জানার চেষ্টা করাঃ

আমরা প্রতিদিন কত রকমই না বিষয়ের সাথে পরিচিত হচ্ছি। এর ফলে আমরা ওই বিষয় গুলো থেকে নতুন নতুব কিছু শিখতে পারছি। এর পাশাপাশি আমাদের নিজ উদ্যোগে নতুন নতুন জিনিস কে জানার চেষ্টা করতে হবে। এর মাধ্যমে আমরা প্রতিদিন নতুন নতুন বিষয় সম্পর্কে অভিজ্ঞতা লাভ করবো এবং এসব অভিজ্ঞতা আমরা আমাদের জীবনে কাজে লাগাতে পারবো। তাই আপনি যদি আপনার উপস্থিত বুদ্ধিকে বাড়াতে চান তাহলে অবশ্যই নতুন নতুন কিছু জানার বা শিখার চেষ্টা করতে হবে।

৪) আপনার ক্রিয়েটিভিটি জাগ্রত করাঃ

আপনি নিজেই নিজেকে যাচাই করবেন যে আপনার মধ্যে কোন কোন ক্রিয়েটিভিটি রয়েছে যা অন্য জনের মধ্যে নেই। আপনি সেসব ক্রিয়েটিভিটি গুলো কে চেষ্টা করবেন বাস্তবিক জীবনে উজ্জীবিত করার। এর ফলে আপনার বুদ্ধি বৃদ্ধি পাবে এবং আপনি নিজেকে মানুষের সামনে ইউনিক বা অনন্য হিসেবে উপস্থাপন করতে সক্ষম হবেন। তাই সর্বদা নিজের ক্রিয়েটিভিটি কে কাজে লাগানোর চেষ্টা করতে হবে।

৫) নিজেকে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করাঃ

আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অধিকাংশ সময়ই সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যয় করে থাকি। এসব এর ফলে আমরা প্রতিনিয়ত অলস হয়ে পড়ছি। এর ফলে আমাদের বুদ্ধি শক্তি হ্রাস পাচ্ছে প্রতিনিয়ত। তাই আমরা যদি আমাদের উপস্থিত বুদ্ধি কে বাড়াতে চাই তাহলে অবশ্যই সোশ্যাল মিডিয়া কে যথাসম্ভব কম সময় ব্যয় করা চেষ্টা করতে হবে।

অতএব আপনি যদি আপনার উপস্থিত বুদ্ধি কে বাড়াতে চান তাহলে উপরিউক্ত নিয়ম উপায় গুলো অনুসরণ করা উচিত।

আজ এই পর্যন্তই। পোস্টটি কেমন লাগলো দয়া করে কমেন্টে জানাবেন, যদি ভাল লেগে থাকে তাহলে অবশ্যয় শেয়ার করবেন, পোস্টটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। এমন সব দারুন দারুন পোস্ট পেতে Grathor এর সাথেই থাকুন এবং গ্রাথোর ফেসবুক পেইজ ও ফেসবুক গ্রুপ এ যুক্ত থাকুন, আল্লাহ হাফেজ।

Related Posts