ডিজিটাল মার্কেটিং কি? কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে করা হয়?

ডিজিটাল মার্কেটিং একটি অনলাইন আয়ের উৎস। যে-টি একটি দীর্ঘ অনলাইন থেকে আয়ের উপায়! আজ আমরা ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে কিছু কথা বলব। ডিজিটাল মার্কেটিং হচ্ছে অনলাইনের মাধ্যমে কোন কিছু প্রডাক্ট বিক্রি করে দেওয়া। সহজে বলতে গেলে কোন কিছু বিক্রি করে দেওয়াই হচ্ছে মার্কেটিং। মার্কেটিং একটা প্যাসিভ আয়ের জন্য একটা জনপ্রিয় মাধ্যম।

মার্কেটিং বা ডিজিটাল মার্কেটিং, সিপিএ মার্কেটিং,এফিলিয়েট মার্কেটিং মার্কেটিং আপনি যে নামেই ডাকেন না কেন? সব প্রক্রিয়া বা মাধ্যম আপনি যে-কোন কাজ-ই শুরু করতে পারেন। মার্কেটিং,সিপিএ মার্কেটিং,ডিজিটাল মার্কেটিং,এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে করা হয়। বা কোনটির কাজ কি? সব এই পোস্টের মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন এই পোষ্টের মাধ্যমে। তো পাঠক ভাই বন্ধুরা সবাই এই পোষ্ট-টি পড়তে থাকুন।

সিপিএ মার্কেটিং কি? কিভাবে সিপিএ মার্কেটিং করা হয়?

সিপিএ মার্কেটিং হচ্ছে কস্ট পার একশন। এর অর্থ হচ্ছে প্রতিটি একশন পূরণ করার পর একটি লিড জেনারেশন করার প্রক্রিয়ায় হচ্ছে কস্ট পার একশন বা সিপিএ মার্কেটিং। সিপিএ মার্কেটিং এর বিভিন্ন ধরনের কাজ আছে যেমন ই-মেইল মার্কেটিং,ডেটিং অফারের জন্য ই-মেইল বা ডেবিট অথবা ক্রডিট কার্ড সাবমিটিং। ল্যান্ডিং পেইজ ম্যাকিং ছাড়াও সিপিএ মার্কেটিং করা যায়। সিপিএ মার্কেটিং হচ্ছে টার্গেটিং মার্কেটিং। সিপিবে মার্কেটিং মূলত কান্ট্রি টারগেটিং কাজ। এখানে মার্কেটিং করতে হলে অবশ্যই কোন না কোন দেশ টার্গেট করতে হয়। তারপর সেই দেশে মার্কেটিং করে লিড জেনারেট করতে হয়। আপনি যদি সিপিএ মার্কেটিং নিয়ে কাজ শুরু করতে চান করতে পারেন। তবে এটি এফিলিয়েট মার্কেটিং এর তুলনায় একটু সহজ কাজ। তবে আপনাকে টার্গেট পূরণ করে লিড পূরণ করতে হবে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি? কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে হয়?

এফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে প্রচার করা বা বিক্রি করে দেওয়া । সহজ ভাষায় বলতে গেলে কোন কোন কিছু বিক্রয় করে দেওয়াই হচ্ছে এফিলিয়েট মার্কেটিং। তবে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর কিছু বিষয় আছে যেগুলো আপনার মাথায় রেখে কাজ করতে হবে। এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে হলে আপনার অবশ্যই একটি এফিলিয়েট ওয়েবসাইট অথবা একটি ফেসবুক পেজ বা একটি বড় ইউটিউব চ্যানেল থাকতে হবে।

কিভাবে আপনি ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং করবেন?

তো ওয়েবসাইটের করতে হলে প্রথমত আপনার নিজের একটি ওয়েবসাইট থাকতে হবে। এই ওয়েবসাইট টাকে আপনি সম্পুর্ন এস ই ও করতে হবে। কি–ওয়ার্ড অনুযায়ী অন পেইজ এবং অফ পেইজ দুটোই করতে হবে। এবার আপনি আপনার ওয়েবসাইটে নিয়মিত প্রডাক্ট আপলোড করতে হবে। আপনার ওয়েবসাইট টাকে এমনভাবে কাস্টমাইজড করবেন যাতে যদি কোন ইউজার ওয়েবসাইট এ ভিজিট করে তাহলে যাতে আপনার ওয়েবসাইট এর প্রডাক্ট ক্রয় করতে বাধ্য থাকে।

তো এই ছিল ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে বিস্তারিত কিছু তথ্য। আশা করি এই পোষ্ট-টি ভালো লেগেছে।

Related Posts

26 Comments

মন্তব্য করুন