Connect with us
★ Grathor.com এ আপনিও ✍ লেখালেখি করে আয় করুন★Click Here★

দেশের খবর

নিউ করোনভাইরাস মিউটেশন সম্পর্কিত স্টাডিজ আমাদের কী বলে?

MD Rahul

Published

on

চিনা উওহানে শ্বাসকষ্টজনিত অসুস্থতার প্রাদুর্ভাবের কারণ হিসাবে চিহ্নিত ১৯৯ সালের নভেল করোনাভাইরাস (২০১২-এনসিওভি) দ্বারা প্রদর্শিত আলট্রাস্ট্রাকচারাল মরফোলজিটি রোগের রোগ কেন্দ্রগুলি দ্বারা প্রকাশিত একটি দৃষ্টান্তে দেখা গেছে

করোনাভাইরাস উপন্যাসের হাজারো নমুনা থেকে জিনগত উপাদানগুলির অধ্যয়নগুলি দেখায় যে এটি পরিবর্তিত হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে এই ফলাফলগুলি বর্তমান মহামারী এবং ভ্যাকসিন এবং চিকিত্সা বিকাশের প্রচেষ্টাগুলিকে প্রভাবিত করতে পারে।

জিআইএসএআইডি উদ্যোগটি হলো অলাভজনক একটি গ্রুপ এবং জার্মানি, সিঙ্গাপুর এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারগুলির মধ্যে একটি অংশীদারিত্ব। এই উদ্যোগকে আগে সমস্ত ইনফ্লুয়েঞ্জা ডেটা ভাগ করে নেওয়ার বিষয়ে গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ বলা হত। এটি ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস সম্পর্কিত জিনগত তথ্যের রেকর্ড সংগ্রহ করে এবং তা জনগণের কাছে প্রকাশ করে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গবেষকরা নতুন করোনভাইরাসটির “স্পাইক” তে জেনেটিক পরিবর্তনগুলি বা মিউটেশনগুলি অনুসরণ করতে জিআইএসএআইডি ডেটা ব্যবহার করেছিলেন। স্পাইকটি করোনভাইরাসটির অংশ যা এটিটিকে তার অস্বাভাবিক আকার দেয়।

গবেষকরা বলেছেন যে তারা লস আলামোস ন্যাশনাল ল্যাবরেটরিতে তাদের তদন্তের প্রথম দিকে ১৪ টি মিউটেশন আবিষ্কার করেছিল। তারা লক্ষ করেছেন যে ডি ৬১৪ জি নামে পরিচিত এটি “জরুরি উদ্বেগের বিষয়” কারণ এটি এই রোগটিকে আরও সংক্রামক করে তুলতে পারে।

একই জিআইএসএআইডি রেকর্ড ব্যবহার করে, ব্রিটেনের একটি দল বিশ্বজুড়ে সংক্রামিত রোগীদের ৭৫০০ এরও বেশি ভাইরাস নমুনার জিনগত উপাদান অধ্যয়ন করেছে।

দলটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ লন্ডনের। তারা করোনভাইরাস জিনোমে তাদের পরীক্ষা করে ১৯৮ টি মিউটেশন সনাক্ত করার কথা জানিয়েছিল, তবে কেউই বিশেষ উদ্বেগের বিষয় বলে মনে হয় নি।

এই অনুসন্ধানটি চীনা গবেষকদের এক পূর্ববর্তী গবেষণাকে অস্বীকার করেছিল। তাদের সমীক্ষায় দেখা গেছে যে চীনে কওভিড -১৯ শুরু হওয়ার সাথে সাথে রোগীদের মধ্যে দুটি স্ট্রেন ছিল। গবেষকরা বলেছেন যে একটি স্ট্রেনকে আরও “আক্রমণাত্মক” হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল।

এরিক টপোল হলেন একজন হৃদর বিশেষজ্ঞ এবং জেনেটিক বিশেষজ্ঞ। তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার লা জোলাতে স্ক্রিপস গবেষণা অনুবাদ অনুবাদ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তিনি রয়টার্সের বার্তা সংস্থাকে এই ধারণাটি বলেছিলেন যে ভাইরাসের বিভিন্ন স্ট্রেন রয়েছে তা প্রত্যাখ্যান করতে হবে।

টপল বলেছিলেন, “আমরা জানি একটি মাত্র স্ট্রেন রয়েছে।”

জোনাথন স্টোই ব্রিটেনের ফ্রান্সিস ক্রিক ইনস্টিটিউটে ভাইরোলজির প্রধান। তিনি বলেছিলেন যে একত্রে নেওয়া, অধ্যয়নগুলি করোনভাইরাসকে একটি আকর্ষণীয় চেহারা দেয় এবং দেখায় যে এটি “একটি চলন্ত লক্ষ্য”।

“ভাইরাসটি বিকশিত হচ্ছে এবং পরিবর্তিত হচ্ছে। স্টোয়ে বলেছিলেন, “এই পরিবর্তনগুলির পরিণতিগুলি কী হবে তা আমরা এখনও জানি না।

“এই করোনভাইরাসটি কোনও ভাল আরএনএ ভাইরাসের মতো পরিবর্তিত হতে পারে,” মার্ক শ্লাইস, একটি আণবিক জেনেটিক্স বিশেষজ্ঞ যোগ করেছেন। তিনি ইউনিভার্সিটি অফ মিনেসোটা মেডিকেল স্কুলের সাথে রয়েছেন।

জিনতত্ত্ব এবং জীববিজ্ঞান বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে কোনও রূপান্তরটি অর্থবহ কিনা তা জানা এখনও খুব তাড়াতাড়ি।

লরেন্স ইয়ং ব্রিটেনের ওয়ারউইক বিশ্ববিদ্যালয়ের আণবিক অ্যানকোলজির অধ্যাপক। তিনি বলেছিলেন যে আরও আক্রমণাত্মক স্ট্রেনের উত্থান সম্পর্কে অনেক পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে, এখনও অবধি অধ্যয়নগুলি দেখায় যে এটি ঘটেনি।

এরিক টোপোল উল্লেখ করেছেন বিজ্ঞানীদের আরও জানার জন্য প্রদত্ত জিনগত পরিবর্তন কীভাবে ভাইরাসের আচরণকে প্রভাবিত করে তা ঠিক পরীক্ষা করে দেখতে হবে।

আমি পিট মুস্তো

কেট কেল্যান্ড রয়টার্স বার্তা সংস্থার জন্য এই গল্পটি জানিয়েছেন পিট মুস্তো এটি ভিওএ লার্নিং ইংরাজির জন্য গ্রহণ করেছে। সম্পাদক ছিলেন জর্জ গ্রো।

আমরা আপনার কাছ থেকে শুনতে চাই. মন্তব্য বিভাগে আমাদের লিখুন।

এই গল্পে শব্দ

নমুনা (গুলি) – এন। একটি অল্প পরিমাণে যা আপনাকে যে জিনিসটি থেকে নেওয়া হয়েছিল সে সম্পর্কে তথ্য দেয়

পৃথিবীব্যাপি – এন। এমন একটি ঘটনা যেখানে একটি রোগ খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে এবং একটি বিস্তৃত অঞ্চল বা বিশ্বজুড়ে বিপুল সংখ্যক লোককে প্রভাবিত করে

স্ট্রেন (গুলি) – এন। ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত গাছপালা, প্রাণী বা অন্যান্য জীবের একটি গ্রুপ

প্রাদুর্ভাব – এন। হঠাৎ শুরু বা লড়াই বা রোগের বৃদ্ধি

লক্ষ্য – এন। কোনও স্থান, জিনিস বা ব্যক্তি যাতে আক্রমণটি লক্ষ্য করা যায়

ফলাফল (গুলি) – এন। একটি বিশেষ ক্রিয়া বা শর্তগুলির সেটের ফলাফল হিসাবে ঘটে এমন কিছু।

এর – এন। উদ্ভিদ এবং প্রাণীর কোষে এমন একটি পদার্থ যা প্রোটিন তৈরিতে সহায়তা করে

অনকোলজি – এন। ক্যান্সার এবং টিউমারগুলির অধ্যয়ন এবং চিকিৎসা।

পোষ্টটি পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ

Advertisement
24 Comments

24 Comments

  1. Abdullah Mahin

    Abdullah Mahin

    May 21, 2020 at 8:39 pm

    Hm

  2. Md Ebrahim

    Md Ebrahim

    May 21, 2020 at 9:50 pm

    Good

  3. MD tazbeer

    MD tazbeer

    May 21, 2020 at 11:31 pm

    well

  4. Anisur Rahman

    Anisur Rahman

    May 21, 2020 at 11:58 pm

    well

  5. Mojammal Haque

    Mojammal Haque

    May 22, 2020 at 12:16 am

    Accha

  6. Emon Rafiq

    Emon Rafiq

    May 22, 2020 at 1:46 am

    Thanks

  7. Khairul Kabir

    Khairul Kabir

    May 22, 2020 at 6:08 am

    nice thanks mate !

  8. Liyana Rasa

    Liyana Rasa

    May 22, 2020 at 9:34 am

    Hmm

  9. Lil20 20

    Lil20 20

    May 22, 2020 at 11:05 am

    Informative

  10. Maria Hasin

    Maria Hasin

    May 22, 2020 at 12:23 pm

    Nice

  11. Md Rakib

    Md Rakib

    May 22, 2020 at 4:45 pm

    nc

  12. Ibna Mezan

    Ibna Mezan

    May 23, 2020 at 3:22 am

    good info

  13. Abdullah Khan

    Abdullah Khan

    May 23, 2020 at 8:41 am

    Valo

  14. Md Hanif

    Md Hanif

    May 23, 2020 at 8:45 am

    nice

  15. Humayun Kabir

    Humayun Kabir

    May 23, 2020 at 5:09 pm

    Gd

  16. Kamal Chy

    Kamal Chy

    May 23, 2020 at 11:24 pm

    সুন্দর পোস্ট।ধন্যবাদ

  17. Md Ruhul Amin

    Md Ruhul Amin

    May 24, 2020 at 9:26 am

    good

  18. Md Ruhul Amin

    Md Ruhul Amin

    May 24, 2020 at 9:28 am

    nice

  19. Asadullah Jilani

    Asadullah Jilani

    May 24, 2020 at 1:42 pm

    hmmmmm

  20. Md Golam Mostàfa

    Md Golam Mostàfa

    May 24, 2020 at 2:24 pm

    Sundor.

  21. Mainul islam Robin

    Mainul islam Robin

    May 24, 2020 at 3:54 pm

    Legend

  22. Kamal Chy

    Kamal Chy

    May 24, 2020 at 10:18 pm

    ধন্যবাদ

  23. Jihad Islam

    Jihad Islam

    May 24, 2020 at 11:32 pm

    Thanks..
    Onek valo information

  24. Mehedi Islam Noman

    Mehedi Islam Noman

    May 25, 2020 at 8:59 am

    Nice post

You must be logged in to post a comment Login

Leave a Reply

দেশের খবর

বাংলাদেশের কোন জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত জানতে হলে পোস্ট টি একবার পড়ে দেখুন।

Mainul islam Robin

Published

on

আসসালামুআলাইকুম বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই আশা করি ভাল আছেন আজ আমি আপনাদের মাঝে আরও একটি নতুন ট্রিকস শেয়ার করার জন্য এসেছি।
আজ আমি আপনাদের কে বলবো যে বাংলাদেশের কোন জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত। তাহলে বন্ধুরা চলুন শুরু করা যাক।
কোন জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত সেটা এখান থেকে জেনে নিন।
. চাদপুর- ইলিশ।
২. রাজশাহী- আম এবং রাজশাহী সিল্ক শাড়ি।
৩. টাঙ্গাইল- চমচম এবং টাঙ্গাইল শাড়ি।
৪. দিনাজপুর- লিচু, কাটারিভোগ চাল,চিড়া, এবং পাপড়ের জন্য বিখ্যাত।
৫. বগুড়া- দই
৬. ঢাকা- বেনারসি শাড়ি, বাকরখানি
৭. কুমিল্লা- রসমালাই, খদ্দর (খাদি)।
৮. চট্রগ্রাম- মেজবান, শুঁটকি।
৯. খাগড়াছড়ি- হলুদ।
১০. বরিশাল- আমড়া।
১১. খুলনা- সুন্দরবন,সন্দেশ, নারিকেল এবং গলদা চিংড়ি।
১২. সিলেট- কমলালেবু,চা,এবং সাতকড়ার আচার।
১৩. নোয়াখালী-নারিকেল এবং ম্যাড়া পিঠা।
১৪. রংপুর- তামাক এবং ইক্ষু।
১৫. গাইবান্ধা-রসমন্জুরী।
১৬. চাপাইনবাবগন্ঞ্জ- আম, শিবগঞ্জের চমচম,কলাইয়ের রুটি।
১৭. পাবনা- ঘি এবং লুঙ্গি
১৮. সিরাজগঞ্জ- পানিতোয়া, ধানসিঁড়ির দই।
১৯. গাজীপুর- কাঠাল,পেয়ারা।
২০. ময়মনসিংহ-মুক্তা গাছার মন্ডা।
২১. কিশোরগঞ্জ- বালিশ মিষ্টি।
২২. জামালপুর- ছানার পোলাও,ছানার পায়েস এবং বুড়ির দোকানের রসমালাই।
২৩. মুন্সীগঞ্জ- ভাগ্যকুলের মিষ্টি।
২৪. নেত্রকোনা- বালিশ মিষ্টি।
২৫. ফরিদপুর- খেজুরের গুড়।
২৬. রাজবাড়ী- চমচম এবং খেজুরের গুড়।
২৭. মাদারীপুর- খেজুরের গুড় এবং রসগোল্লা।
২৮. সাতক্ষীরা- সন্দেশ।
২৯. শেরপুর- ছানার পায়েস এবং ছানার চপ।
৩০. বাগেরহাট- চিংড়ি এবং সুপারি।
৩১. যশোর- খেজুরের গুড়, খই, জামতলার মিষ্টি।
৩২. মাগুরা- রসমালাই।
৩৩. নড়াইল- পোড়া সন্দেশ, খেজুর গুড় এবং এই খেজুরের রস।
৩৪. নাটোর- কাঁচাগোল্লা, এবং বনলতা সেন।
৩৫. মেহেরপুর- মিষ্টি সাবিত্রী এবং রস কদম্ব।
৩৬. চুয়াডাঙ্গা- পান, তামাক এবং ভুট্টা।
৩৭. ঝালকাঠি- আটা।
৩৮. ভোলা- নারিকেল এবং মহিষের দুধের দই।
৩৯. পটুয়াখালী- মহিষের দই, কুয়াকাটা।
৪০. পিরোজপুর- পেয়ারা, নারিকেল, সুপারি, আমড়া।
৪১. নরসিংদী- সাগর কলা।
৪২. নওগাঁ- চাল, সন্দেশ।
৪৩. মানিকগঞ্জ- খেজুরের গুড়।
৪৪. রাঙামাটি- আনারস, কাঠাল, কলা।
৪৫. কক্সবাজার- মিষ্টি পান।
৪৬. বান্দরবান- হিল জুস এবং তামাক।
৪৭. ফেনী- মহিষের দুধের ঘি এবং খন্ডলের মিষ্টি।
৪৮. লক্ষ্মীপুর- সুপারি।
৪৯. কুষ্টিয়া- তিলের খাজা এবং কুলফি আইসক্রিম।
৫০. ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়া- তাদের বড়া এবং ছানামুখী।
৫১. মৌলভীবাজার- ম্যানেজার স্টোরের রসগোল্লা।
৫২. জয়পুরহাট- উত্তরাঞ্চলে শস্য ভান্ডারের খ্যাত।
৫৩. নারায়াগঞ্জ- সোনালী আঁশ পাটের জন্য বিখ্যাত।
৫৪. শরীয়তপুর- পাট, আদা, পেঁয়াজ, টমেটো।
৫৫. কুড়িগ্রাম- ধান , পাট, তামাক।
৫৬. নীলফামারী- তামাক।
৫৭. সুনামগঞ্জ- পাথর শিল্প, মৎস্য, ধান, সিমেন্ট শিল্প।
৫৮. হবিগঞ্জ- সাদা সিলিকা বালু।
৫৯. পঞ্চগড়- ইট ,বালি, পাথর, চা ,তরমুজ।
৬০. ঠাকুরগাঁও- আলু, ভুট্টা, কাঁঠাল।
৬১. বরগুনা- নারিকেল ও সুপারি।
৬২. লালমনিরহাট- তিস্তা নদী, তিস্তা রেলসেতু।
৬৩. গোপালগঞ্জ- বঙ্গবন্ধু সমাধিসোধ, মধুমতি নদী, কোর্ট মসজিদ।
৬৪. ঝিনাইদহ- ধান, পাট, গম, রসুনআমি পটুয়াখালী জেলার আপনারা কে কোন জেলার তা কমেন্টে জানিয়ে দিন। পোস্ট টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

তাহলে বন্ধুরা আজকের মতো এই পর্যন্তই। পরবর্তীতে আবার আসবো আপনাদের মাঝে কোনো একটি নতুন পোস্ট নিয়ে সেই পর্যন্ত সবাই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন ধন্যবাদ।

Continue Reading

দেশের খবর

বাংলাদেশের করোনা ভাইরাসের বিস্তার প্রার্দুভাব

Mehat Hossain Ruman

Published

on

  • আসসালামু আলাইকুম

    সবাই কেমন আছেন আশা রাখি সবাই ভাল আছেন। ইনশাআল্লাহ ভালো থাকবেন এবং ভালো থাকার চেষ্টা করবেন। বর্তমান বিশ্বে যখন মহামারী আকার ধারণ করছে তখন কিভাবে ভাল থাকে বলেন তবু আমরা ভালো থাকার চেষ্টা করব, সাবধানে থাকবো, বর্তমান বিশ্বে যখন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত Covid19।
    বাংলাদেশের করোনা ভাইরাস এর ব্যাপক বিস্তার লাভ করছে দিন দিন এর প্রকোপ বেড়ে চলছে
    ভবিষ্যতে কি হয় তা জানা মুশকিল যেখানে ইউরোপ-আমেরিকার মতো বড় বড় রাষ্ট্র বড় হুমকির মুখে পড়তে যাচ্ছে সেখানে বাংলাদেশ মত ছোট দেশ কি বা করতে পারে।
    প্রথম যখন চীনের উহান শহর থেকে করোনাভাইরাস উৎপত্তি হয় তখন ধীরে ধীরে সেটা প্রভাব বিস্তার লাভ করে ধীরে ধীরে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ে। আমেরিকা, রাশিয়া, ইতালি, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, ব্রাজিল ইত্যাদি। পৃথিবীর প্রায় 210 টি দেশে করোনা ভাইরাস এর বিস্তার ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম একই মার্চ করোনাভাইরাস এর রোগীর নমুনা পরীক্ষা করা হয়। ধীরে ধীরে পুরো বাংলাদেশের ছড়িয়ে পড়ে।
    বর্তমান বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় 50 লাখের মতো এবং মৃতের সংখ্যা সাত লাখের কাছাকাছি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন 35 হাজার 620 জন
    গত 24 ঘন্টা বাংলাদেশ মোট।
    নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে: ১১৫৮৫
    মোট :৩০৮৯৩০
    আক্রান্ত হয়েছে:২৫৪৫
    মোট:৪৭১৫৩
    মৃত্যু :৪০
    মোট মৃত্যু: ৬৫০
    সুস্থ:৪০৬
    মোট সুস্থ:৪৭৪৫
    কথা 24 ঘন্টা বরিশাল শহরে 11 জন পুলিশের শরীরে করনা পাওয়া গেছে এবং তাদের সাময়িকভাবে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
    দিন দিন এর প্রকোপ বেড়ে চলছে। বর্তমানে প্রায় 30 টির বেশী ভ্যাকসিন তৈরি করেছে কিন্তু এর কার্যপ্রণালী বিশেষ কিছু ক্ষতি করতে পারে না। তাই আমাদের নিয়মিত নিজের স্বাস্থ্যবিধি চলতে হবে। প্রতিদিন কম ভালো দশবার সাবান পানি দিয়ে নিজের হাত অত্যন্ত 20 সেকেন্ড ধুতে হবে, মুখে মাক্স পড়তে হবে, এবং হাতে হ্যান্ড গ্লাভস পড়তে হবে, সবসময় হাতে সেনেটারী জীবাণুনাশক হাতে মারতে হবে বিশেষ কোনো কারণ ছাড়া ঘরের বাইরে যাওয়া হবেনা যাওয়া না খুব প্রয়োজন হলে মাস্ক পরে বের হতে হবে। নিয়মিত স্বাস্থ্যবিধি স্বাস্থ্যসম্মত মেনে চলতে হবে। স্বাস্থ্যসম্মত খাবার ফলমূল খেতে হবে তেল জাতীয় খাবার থেকে বিরত থাকতে হবে
    এবং আশেপাশে কোন করোনা ব্যক্তি থাকলে তার কাছ থেকে দূরে থাকতে হবে। হাঁচি-কাশির, সময় মাস্ক ও নুমাল ব্যবহার করতে হবে। স্বাস্থ্যসম্মত বিধি মেনে চলতে হবে জীবন যাপন করতে হবে এবং সব সময় সতর্ক থাকতে হবে।

    তবু আমরা সব সময় আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে দোয়া প্রার্থনা করব তিনি যেন আমাদের সুস্থ রাখেন।
    সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন এটাই কামনা
    Stay Home
    Stay Safe
    সবাইকে আসসালামু আলাইকুম।

Continue Reading

দেশের খবর

ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ আসছে আগামী বুধবার জেনে নিন নিসর্গ কোথায় কোথায় আঘাত হানবে !

Shahed Ahamed

Published

on

পাঠক,

চলুন সরাসরি কথা না বলে চলে যায় কাজের কথায় 2020 সাল আমাদের জন্য যেন একটা অভিশপ্ত একের পর এক দুর্যোগ আসতে চলেছে নানা রকমের দুর্ভিক্ষ তারা নানা রকমের কারণে আমাদের এই দেশটা বা গোটা বিশ্ব তার ভয়ের মধ্যে রয়েছে।।

2020 সালের প্রথম থেকে আমরা নানারকম সমস্যায় জরিয়ে আছি।
এদিকে নানারকম রোগে ভুগছি একের পরে তারপর আবার নানা ধরনের ঝড় এসে আমাদের লন্ডভন্ড করে দিচ্ছে।

গেল কিছুদিন আগে একটি ঝড় এসে আমাদের সারাদেশে প্রায় সবকিছু লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে সেটার নাম হলো আমফান।
খুব ভয়াবহ এবং অনেক ক্ষতি সাধন করেছে দেশের অনেক ঘরবাড়ি নষ্ট করে দিয়েছে এবং দেশে 8 থেকে 15 জনের মতো প্রাণ গেছে এই ঝরের কারণে।

যে ঝড় আসতে চলেছে তার নাম হলো নিসর্গ।
বর্তমানে ভারতের আবহাওয়াবিদরা এটা নিশ্চিত করেছে যে এই ঝড়
সম্পূর্ণ নাকি ভারতের উপর দিয়ে বয়ে যাবে।
অন্য কোথাও আঘাত আনবে না তারা বলেছ আগামী বুধবার গুজরাট ও উত্তর মহারাষ্ট্র উপকূলে আছড়ে পড়বে এই ঘূর্ণিঝড় ।

নিসগর্ বাংলাদেশে আসার বা বাংলাদেশ কোন রকম ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার চান্স নাই।

যদি এইটা বাংলাদেশের দিকে আসে তবে বাংলাদেশের কোন প্রভাব পড়বে না এবং কোন ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

ঝড়ের গতিবেগ টা সম্পন্ন তারা বলতে পারিনি তবে ঝড় আসলে সেটা নির্ধারণ করতে পারবে এটা বলেছে তারা।

সুতরাং আমাদের দেশে অর্থাৎ বাংলাদেশে কোন রকম গুজব ছড়ানোর কোন মানেই হয়না। আমাদের দেশে কোনো আঘাত আনবে না কোনো ক্ষয়ক্ষতি করবে না সোনা আমরা এটা থেকে সাবধান থাকবো যেন কোন রকম গুজব না ছড়ায়।

ভারতের মুম্বাই শহরে সবথেকে বেশি আঘাত হানবে।

তাই আপনারা গুজব ছড়াবেন না অন্যের গুজব ছড়ানো থেকে বিরত থাকুন আর নিজেকে সচেতন রাখুন আজকের মতো এখানেই শেষ করছি।

অনেক ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন

Continue Reading