★ Grathor.com এ আপনিও ✍ লেখালেখি করে ভূমিকা রাখতে পারেন এবং পাশাপাশি অর্থ আয় করতে পারেন★এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জানুন★

ব্ল্যাক ফ্রাইডে কি? ব্ল্যাক ফ্রাইডের কেন? ইতিহাস জানুন

আপনি হয়তো ইতিমধ্যে ব্ল্যাক ফ্রাইডে নামটির শুনে থাকবেন। ব্ল্যাক ফ্রাইডে হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিশেষ দিবস। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে এটি বিশ্বজুড়ে উদযাপিত হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাড, যুক্তরাজ্য পাশাপাশি এশিয়া মহাদেশ এমনকি বাংলাদেশেও এর প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

এই দিনে ব্যবসায়ীরা পণ্যের উপর বিশেষ ছাড় প্রদান করে থাকে আর এই ছাড় এর পরিমাণ থাকে অবিশ্বাস্য আর তা ক্রেতাদের মধ্যে হিড়িক পড়ে যায়। কথিত আছে ব্ল্যাক ফ্রাইডে তে 1000 ডলার মূল্যের একটি টিভি 200 ডলার পর্যন্ত বিক্রি হয়। ওয়ালমার্টের মতো বৃহত্তর কোম্পানি তাদের নেট মুনাফা 1 জানুয়ারি থেকে শুরু করে বছরের 14 বিলিয়ন ডলার থেকে ব্ল্যাক ফ্রাইডে 19 বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করতে পারে। 

চলুন সংক্ষিপ্তভাবে ব্ল্যাক ফ্রাইডে নামকরণ এবং ইতিহাস সম্পর্কে জেনে নেই – সাধারণত কালো শব্দটি নেতিবাচক হলেও ব্যবসায়ীদের জন্য এটি ইতিবাচক দিক নির্দেশ করে। ব্ল্যাক ফ্রাইডে নামকরণ এবং ইতিহাস নিয়ে বিভিন্ন মতভেদ রয়েছে। ১৮৬৯ সালের দিকে আমেরিকায় ভয়াবহ অর্থনৈতিক মন্দা চলছিল।


তখন ব্যবসায়ীরা এমন একটি দিনের কথা ভেবেছিল অর্থনৈতিক পরিসংখ্যানে দেখা যায় যে পরিমাণ বিক্রি হয় তাতেই অর্থনৈতিক সূচক এক লাফে অনেক উপরে উঠে যায় সাধারণত হিসাবের খাতায় লোকসানের হিসাব লাল কালিতে লেখা হলেও এ দিবসে শুরুর দিন থেকেই হিসাব-নিকাশ কালো কালিতে লেখা হয় কাজেই এই দিনটি ব্ল্যাক ফ্রাইডে বলা যায়। 

এছাড়াও থেকে এমনকি সকাল হওয়ার আগেই ক্রেতাদের লম্বা লাইন দেখা যায়। প্রতিবছর নভেম্বর মাসের চতুর্থ শুক্রবার ব্ল্যাক ফ্রাইডে। প্রতিবছর নভেম্বর মাসের চতুর্থ বৃহস্পতিবার হচ্ছে – থ্যাংকস গিভিং ডে এবং থ্যাংকস গিভিং ডে এর পরের দিন হচ্ছে অর্থাৎ নভেম্বর মাসের চতুর্থ শুক্রবার হচ্ছে ব্ল্যাক ফ্রাইডে। আজ এই পর্যন্তই আর্টিকেলটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন এবং কমেন্ট করে জানিয়ে দিন আপনার মতামত।