Connect with us
★ Grathor.com এ আপনিও ✍ লেখালেখি করে আয় করুন★Click Here★

দেশের খবর

ওষুধেই হবে কৱনা মুক্তি?

Priyam Biswas

Published

on

ওষুধেই হবে কৱনা মুক্তি:

কেমন আছেন সবাই আশা করি সবাই ভাল আছেন সম্প্রতি চীন এর কিছু বিজ্ঞানীর দাবি করছে যে ভ্যাকসিন এ নয় ঔষধেয় হবে করনা জয়। উল্লেখ্য যে চিনে 2019 এর ডিসেম্বর মাস থেকে প্রথম করো না সংক্রমণের বিষয় সামনে আসে এরপর থেকে ধীরে ধীরে সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে করোনা ভাইরাস। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় 62 টি দেশ এই ভাইরাস এর ভ্যাকসিন তৈরিতে ব্যস্ত।
তাদের মধ্যে চিন ও অন্যতম। চীনে এখন পর্যন্ত ভাইরাস নির্মূলের ভ্যাকসিন আবিষ্কারের দাবি করে এসেছে। এরই মধ্যে আরেকদল গবেষক দাবি করছে যে ভ্যাকসিন ছাড়াই এই ভাইরাস নির্মূল করা সম্ভব শুধুমাত্র ওষুধের মাধ্যমে। আর এই ওষুধ প্রয়োগের ফলে স্বল্পস্থায়ী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে এন্টিবডি তৈরি হচ্ছে। এমনটাই দাবি করছে বেইজিংয়ের প্রতিষ্ঠান অ্যাডভান্সড ইনোভেশন সেন্টার ফর জেনোমিক্স। এই প্রতিষ্ঠানটি প্রাণীদের ওপর সফলভাবে ওষুধের মাধ্যমে রোগ নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছে।
এই প্রতিষ্ঠানটি পরীক্ষার জন্য ইঁদুরের উপর করনা ভাইরাসের জীবাণু প্রয়োগ করে। এরপর ওই আক্রান্ত ইঁদুর এর ওপর ওষুধ পরীক্ষামূলক ব্যবহার করে দেখেছেন যে ইঁদুর গুলো খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠেছে।যে ওষুধ অ্যান্টিবডি নিউট্রিলাইজ করে- তা অনেকাংশেই মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থেকে তৈরি হয়, যা ভাইরাসের দ্বারা কোষ আক্রান্ত হওয়া আটকায়।
রবিবার একটি জার্নালে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী ঘটনা ভাইরাস রোগ থেকে দ্রুত নিরাময়ের জন্য এন্টি বডির মাধ্যমে এই ভাইরাস থেকে মুক্তি মিলছে।
উল্লেখ্য যে বিভিন্ন দেশে কর্মরত থেকে মুক্তির জন্য অনেক ধরনের ভ্যাকসিন আবিষ্কারের দাবি করে থাকলেও তা তা এখনো ক্লিনিকাল ট্রায়াল পর্যায়ে রয়েছে। আর এই ট্রায়ালের ফলাফল পেতে আরও কয়েক মাস লেগে যেতে পারে। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে যে সকল ব্যক্তি সফল হবে বা কার্যকর বলে প্রমাণিত হবে সে সকল ভ্যাকসিন বৃহৎ আকারে বাজার জাত করতে লেগে যাবে আরো অনেক দিন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে পরিপূর্ণ ভ্যাকসিন আসতে লেগে যেতে পারে আরও 12 থেকে 18 মাস, এর আগে ভ্যাকসিন সকল ট্রায়ান শেষ করে বাজারে আসা সম্ভব নয়। আর এই পরিস্থিতি চিনের গবেষক দল ওষুধের ওপর নির্ভর করে করোনা মুক্তি সম্ভব বলে জানান। সম্প্রতি বাংলাদেশের কিছু চিকিৎসক বলেছেন যে তারা দুটি পুরনো সার্স রোগের ওষুধের মিশ্রণ এর মাধ্যমে 60 জন রোগীকে সম্পূর্ণ সুস্থ করে তুলতে সক্ষম হয়েছে। আর চিনেও তাজমা থেরাপির পর প্রায় 700 মানুষকে এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা করে সম্পূর্ণরূপে করোনা ভাইরাস মুক্ত করতে পেরেছেন বলে চীনের সেই প্রতিষ্ঠানটি জানায়। তবে কি ধরনের ওষুধ ব্যবহার করা হবে বা কিভাবে ব্যবহার করতে হবে সে ধরনের বা সে সম্পর্কে এখনো স্পষ্ট কিছু জানানো হয়নি।

দেশের খবর

বাংলাদেশের কোন জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত জানতে হলে পোস্ট টি একবার পড়ে দেখুন।

Mainul islam Robin

Published

on

আসসালামুআলাইকুম বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই আশা করি ভাল আছেন আজ আমি আপনাদের মাঝে আরও একটি নতুন ট্রিকস শেয়ার করার জন্য এসেছি।
আজ আমি আপনাদের কে বলবো যে বাংলাদেশের কোন জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত। তাহলে বন্ধুরা চলুন শুরু করা যাক।
কোন জেলা কিসের জন্য বিখ্যাত সেটা এখান থেকে জেনে নিন।
. চাদপুর- ইলিশ।
২. রাজশাহী- আম এবং রাজশাহী সিল্ক শাড়ি।
৩. টাঙ্গাইল- চমচম এবং টাঙ্গাইল শাড়ি।
৪. দিনাজপুর- লিচু, কাটারিভোগ চাল,চিড়া, এবং পাপড়ের জন্য বিখ্যাত।
৫. বগুড়া- দই
৬. ঢাকা- বেনারসি শাড়ি, বাকরখানি
৭. কুমিল্লা- রসমালাই, খদ্দর (খাদি)।
৮. চট্রগ্রাম- মেজবান, শুঁটকি।
৯. খাগড়াছড়ি- হলুদ।
১০. বরিশাল- আমড়া।
১১. খুলনা- সুন্দরবন,সন্দেশ, নারিকেল এবং গলদা চিংড়ি।
১২. সিলেট- কমলালেবু,চা,এবং সাতকড়ার আচার।
১৩. নোয়াখালী-নারিকেল এবং ম্যাড়া পিঠা।
১৪. রংপুর- তামাক এবং ইক্ষু।
১৫. গাইবান্ধা-রসমন্জুরী।
১৬. চাপাইনবাবগন্ঞ্জ- আম, শিবগঞ্জের চমচম,কলাইয়ের রুটি।
১৭. পাবনা- ঘি এবং লুঙ্গি
১৮. সিরাজগঞ্জ- পানিতোয়া, ধানসিঁড়ির দই।
১৯. গাজীপুর- কাঠাল,পেয়ারা।
২০. ময়মনসিংহ-মুক্তা গাছার মন্ডা।
২১. কিশোরগঞ্জ- বালিশ মিষ্টি।
২২. জামালপুর- ছানার পোলাও,ছানার পায়েস এবং বুড়ির দোকানের রসমালাই।
২৩. মুন্সীগঞ্জ- ভাগ্যকুলের মিষ্টি।
২৪. নেত্রকোনা- বালিশ মিষ্টি।
২৫. ফরিদপুর- খেজুরের গুড়।
২৬. রাজবাড়ী- চমচম এবং খেজুরের গুড়।
২৭. মাদারীপুর- খেজুরের গুড় এবং রসগোল্লা।
২৮. সাতক্ষীরা- সন্দেশ।
২৯. শেরপুর- ছানার পায়েস এবং ছানার চপ।
৩০. বাগেরহাট- চিংড়ি এবং সুপারি।
৩১. যশোর- খেজুরের গুড়, খই, জামতলার মিষ্টি।
৩২. মাগুরা- রসমালাই।
৩৩. নড়াইল- পোড়া সন্দেশ, খেজুর গুড় এবং এই খেজুরের রস।
৩৪. নাটোর- কাঁচাগোল্লা, এবং বনলতা সেন।
৩৫. মেহেরপুর- মিষ্টি সাবিত্রী এবং রস কদম্ব।
৩৬. চুয়াডাঙ্গা- পান, তামাক এবং ভুট্টা।
৩৭. ঝালকাঠি- আটা।
৩৮. ভোলা- নারিকেল এবং মহিষের দুধের দই।
৩৯. পটুয়াখালী- মহিষের দই, কুয়াকাটা।
৪০. পিরোজপুর- পেয়ারা, নারিকেল, সুপারি, আমড়া।
৪১. নরসিংদী- সাগর কলা।
৪২. নওগাঁ- চাল, সন্দেশ।
৪৩. মানিকগঞ্জ- খেজুরের গুড়।
৪৪. রাঙামাটি- আনারস, কাঠাল, কলা।
৪৫. কক্সবাজার- মিষ্টি পান।
৪৬. বান্দরবান- হিল জুস এবং তামাক।
৪৭. ফেনী- মহিষের দুধের ঘি এবং খন্ডলের মিষ্টি।
৪৮. লক্ষ্মীপুর- সুপারি।
৪৯. কুষ্টিয়া- তিলের খাজা এবং কুলফি আইসক্রিম।
৫০. ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়া- তাদের বড়া এবং ছানামুখী।
৫১. মৌলভীবাজার- ম্যানেজার স্টোরের রসগোল্লা।
৫২. জয়পুরহাট- উত্তরাঞ্চলে শস্য ভান্ডারের খ্যাত।
৫৩. নারায়াগঞ্জ- সোনালী আঁশ পাটের জন্য বিখ্যাত।
৫৪. শরীয়তপুর- পাট, আদা, পেঁয়াজ, টমেটো।
৫৫. কুড়িগ্রাম- ধান , পাট, তামাক।
৫৬. নীলফামারী- তামাক।
৫৭. সুনামগঞ্জ- পাথর শিল্প, মৎস্য, ধান, সিমেন্ট শিল্প।
৫৮. হবিগঞ্জ- সাদা সিলিকা বালু।
৫৯. পঞ্চগড়- ইট ,বালি, পাথর, চা ,তরমুজ।
৬০. ঠাকুরগাঁও- আলু, ভুট্টা, কাঁঠাল।
৬১. বরগুনা- নারিকেল ও সুপারি।
৬২. লালমনিরহাট- তিস্তা নদী, তিস্তা রেলসেতু।
৬৩. গোপালগঞ্জ- বঙ্গবন্ধু সমাধিসোধ, মধুমতি নদী, কোর্ট মসজিদ।
৬৪. ঝিনাইদহ- ধান, পাট, গম, রসুনআমি পটুয়াখালী জেলার আপনারা কে কোন জেলার তা কমেন্টে জানিয়ে দিন। পোস্ট টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

তাহলে বন্ধুরা আজকের মতো এই পর্যন্তই। পরবর্তীতে আবার আসবো আপনাদের মাঝে কোনো একটি নতুন পোস্ট নিয়ে সেই পর্যন্ত সবাই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন ধন্যবাদ।

Continue Reading

দেশের খবর

বাংলাদেশের করোনা ভাইরাসের বিস্তার প্রার্দুভাব

Mehat Hossain Ruman

Published

on

  • আসসালামু আলাইকুম

    সবাই কেমন আছেন আশা রাখি সবাই ভাল আছেন। ইনশাআল্লাহ ভালো থাকবেন এবং ভালো থাকার চেষ্টা করবেন। বর্তমান বিশ্বে যখন মহামারী আকার ধারণ করছে তখন কিভাবে ভাল থাকে বলেন তবু আমরা ভালো থাকার চেষ্টা করব, সাবধানে থাকবো, বর্তমান বিশ্বে যখন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত Covid19।
    বাংলাদেশের করোনা ভাইরাস এর ব্যাপক বিস্তার লাভ করছে দিন দিন এর প্রকোপ বেড়ে চলছে
    ভবিষ্যতে কি হয় তা জানা মুশকিল যেখানে ইউরোপ-আমেরিকার মতো বড় বড় রাষ্ট্র বড় হুমকির মুখে পড়তে যাচ্ছে সেখানে বাংলাদেশ মত ছোট দেশ কি বা করতে পারে।
    প্রথম যখন চীনের উহান শহর থেকে করোনাভাইরাস উৎপত্তি হয় তখন ধীরে ধীরে সেটা প্রভাব বিস্তার লাভ করে ধীরে ধীরে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ে। আমেরিকা, রাশিয়া, ইতালি, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, ব্রাজিল ইত্যাদি। পৃথিবীর প্রায় 210 টি দেশে করোনা ভাইরাস এর বিস্তার ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম একই মার্চ করোনাভাইরাস এর রোগীর নমুনা পরীক্ষা করা হয়। ধীরে ধীরে পুরো বাংলাদেশের ছড়িয়ে পড়ে।
    বর্তমান বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় 50 লাখের মতো এবং মৃতের সংখ্যা সাত লাখের কাছাকাছি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন 35 হাজার 620 জন
    গত 24 ঘন্টা বাংলাদেশ মোট।
    নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে: ১১৫৮৫
    মোট :৩০৮৯৩০
    আক্রান্ত হয়েছে:২৫৪৫
    মোট:৪৭১৫৩
    মৃত্যু :৪০
    মোট মৃত্যু: ৬৫০
    সুস্থ:৪০৬
    মোট সুস্থ:৪৭৪৫
    কথা 24 ঘন্টা বরিশাল শহরে 11 জন পুলিশের শরীরে করনা পাওয়া গেছে এবং তাদের সাময়িকভাবে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
    দিন দিন এর প্রকোপ বেড়ে চলছে। বর্তমানে প্রায় 30 টির বেশী ভ্যাকসিন তৈরি করেছে কিন্তু এর কার্যপ্রণালী বিশেষ কিছু ক্ষতি করতে পারে না। তাই আমাদের নিয়মিত নিজের স্বাস্থ্যবিধি চলতে হবে। প্রতিদিন কম ভালো দশবার সাবান পানি দিয়ে নিজের হাত অত্যন্ত 20 সেকেন্ড ধুতে হবে, মুখে মাক্স পড়তে হবে, এবং হাতে হ্যান্ড গ্লাভস পড়তে হবে, সবসময় হাতে সেনেটারী জীবাণুনাশক হাতে মারতে হবে বিশেষ কোনো কারণ ছাড়া ঘরের বাইরে যাওয়া হবেনা যাওয়া না খুব প্রয়োজন হলে মাস্ক পরে বের হতে হবে। নিয়মিত স্বাস্থ্যবিধি স্বাস্থ্যসম্মত মেনে চলতে হবে। স্বাস্থ্যসম্মত খাবার ফলমূল খেতে হবে তেল জাতীয় খাবার থেকে বিরত থাকতে হবে
    এবং আশেপাশে কোন করোনা ব্যক্তি থাকলে তার কাছ থেকে দূরে থাকতে হবে। হাঁচি-কাশির, সময় মাস্ক ও নুমাল ব্যবহার করতে হবে। স্বাস্থ্যসম্মত বিধি মেনে চলতে হবে জীবন যাপন করতে হবে এবং সব সময় সতর্ক থাকতে হবে।

    তবু আমরা সব সময় আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে দোয়া প্রার্থনা করব তিনি যেন আমাদের সুস্থ রাখেন।
    সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন এটাই কামনা
    Stay Home
    Stay Safe
    সবাইকে আসসালামু আলাইকুম।

Continue Reading

দেশের খবর

ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ আসছে আগামী বুধবার জেনে নিন নিসর্গ কোথায় কোথায় আঘাত হানবে !

Shahed Ahamed

Published

on

পাঠক,

চলুন সরাসরি কথা না বলে চলে যায় কাজের কথায় 2020 সাল আমাদের জন্য যেন একটা অভিশপ্ত একের পর এক দুর্যোগ আসতে চলেছে নানা রকমের দুর্ভিক্ষ তারা নানা রকমের কারণে আমাদের এই দেশটা বা গোটা বিশ্ব তার ভয়ের মধ্যে রয়েছে।।

2020 সালের প্রথম থেকে আমরা নানারকম সমস্যায় জরিয়ে আছি।
এদিকে নানারকম রোগে ভুগছি একের পরে তারপর আবার নানা ধরনের ঝড় এসে আমাদের লন্ডভন্ড করে দিচ্ছে।

গেল কিছুদিন আগে একটি ঝড় এসে আমাদের সারাদেশে প্রায় সবকিছু লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে সেটার নাম হলো আমফান।
খুব ভয়াবহ এবং অনেক ক্ষতি সাধন করেছে দেশের অনেক ঘরবাড়ি নষ্ট করে দিয়েছে এবং দেশে 8 থেকে 15 জনের মতো প্রাণ গেছে এই ঝরের কারণে।

যে ঝড় আসতে চলেছে তার নাম হলো নিসর্গ।
বর্তমানে ভারতের আবহাওয়াবিদরা এটা নিশ্চিত করেছে যে এই ঝড়
সম্পূর্ণ নাকি ভারতের উপর দিয়ে বয়ে যাবে।
অন্য কোথাও আঘাত আনবে না তারা বলেছ আগামী বুধবার গুজরাট ও উত্তর মহারাষ্ট্র উপকূলে আছড়ে পড়বে এই ঘূর্ণিঝড় ।

নিসগর্ বাংলাদেশে আসার বা বাংলাদেশ কোন রকম ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার চান্স নাই।

যদি এইটা বাংলাদেশের দিকে আসে তবে বাংলাদেশের কোন প্রভাব পড়বে না এবং কোন ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

ঝড়ের গতিবেগ টা সম্পন্ন তারা বলতে পারিনি তবে ঝড় আসলে সেটা নির্ধারণ করতে পারবে এটা বলেছে তারা।

সুতরাং আমাদের দেশে অর্থাৎ বাংলাদেশে কোন রকম গুজব ছড়ানোর কোন মানেই হয়না। আমাদের দেশে কোনো আঘাত আনবে না কোনো ক্ষয়ক্ষতি করবে না সোনা আমরা এটা থেকে সাবধান থাকবো যেন কোন রকম গুজব না ছড়ায়।

ভারতের মুম্বাই শহরে সবথেকে বেশি আঘাত হানবে।

তাই আপনারা গুজব ছড়াবেন না অন্যের গুজব ছড়ানো থেকে বিরত থাকুন আর নিজেকে সচেতন রাখুন আজকের মতো এখানেই শেষ করছি।

অনেক ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন

Continue Reading