” পিঁপড়ার হাত থেকে বেচে থাকার সহজ উপায় জেনে নিন “

পিঁপড়া আমাদের সকলের কাছেই পরিচিত।  কেননা পিঁপড়া আমাদের বাড়িতে এবং বাড়ির আসে পাশে দেখতে পায়।তবে আমরা ভালো চিনি তার কারন হচ্ছে এর যালাতন। তাই আমি পিঁপড়া হাত বাচার সম্পর্কে কিছু কথা বলব।তবে বলা হয় একদিন সব পিঁপড়া কাজ করা বন্ধ করে দিলে নাকি পৃথিবী অচল হয়ে যাবে। তবে মাত্রারিক্ত পিঁপড়া হতে পারে বিরক্তির কারণ।
পিঁপড়ার হাত থেকে রেহাই পেতে নানা রাসায়নিক ও কীটনাশকে ভরসা করতে হয়। এতে অকারণে মারা পড়ে পিঁপড়া, আবার রাসায়নিকের কারণে বাড়ির সদস্যদের শারীরিক সমস্যাও হয়। অনেকের এই সব রাসায়নিক থেকে নানা অসুখও ছড়ায়।

তার চেয়ে এমন উপায় অবলম্বন করতেই পারেন যেখানে অকারণ পিঁপড়াদের না মেরে, তাদের তাড়াতে পারেন বাড়ি থেকে। এ দিকে আপনিও মুক্ত থাকবেন রাসায়নিকের ঝামেলা থেকে।

যে রাসায়নিক সংকেতের মাধ্যমে পিঁপড়ারা একে অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ চালায়, নিজেদের রাস্তা ঠিক করে, সেই রাসায়নিককে নষ্ট করে ঝাল জাতীয় উপাদান। তাই মরিচের গুঁড়োর গন্ধ সহ্য করতে পারে না পিঁপড়া। বর্ষায় বাড়ির উঁচু জায়গাগুলোয় (যেখানে শিশুদের হাত পৌঁছবে না) ছড়িয়ে রাখুন অল্প মরিচের গুঁড়ো। পিঁপড়া আর বাসাই বাঁধবে না ওখানে।
ভিনিগারের অম্ল পিঁপড়ে তাড়াতে খুব কার্যকর। এক কাপ পানি কিছুটা ভিনিগার মিশিয়ে তা ছড়িয়ে দিন পিঁপড়ার উপদ্রুত এলাকায়। পিঁপড়ারা ওই এলাকার ধারেকাছে ঘেঁষবে না।
পিঁপড়ের অবাধ যাতায়াত যে সব জায়গায়, সেখানে দারুচিনির গুঁড়ো ছড়িয়ে রাখুন। দারুচিনির গন্ধ পিঁপড়ার ঘ্রাণশক্তিকে কিছুটা দুর্বল করে দেয়। পিঁপড়ার দিক নির্দেশ ক্ষমতা লোপ পায়।

লেবুর রসের অ্যাসিটিক অ্যাসিড পিঁপড়েদের গন্ধ চিনতে বাধা দেয়। তাই পানির মধ্যে খানিকটা লেবুর রস মিশিয়ে তা স্প্রে করতে পারেন ঘরের কোণায়। সহজেই পিঁপড়ামুক্ত হবে ঘর-বাড়ি।আশাকরি সবায় পিঁপড়ার হাত বাঁচার কৌশল শিখলেন। আপনারা সবাই আমাকে একটি করে লাইক দিবেন। সবাইকে আমার পোস্ট পড়ার জন্য ধন্যবাদ ।

<

Related Posts