★ Grathor.com এ আপনিও ✍ লেখালেখি করে আয় করুন★Click Here★

আফিলিয়েট মার্কেটিং সাফল্যের জন্য ১০টি টিপস

প্রত্যেক টি আফিলিয়েট মার্কেটারই চায়ে সাফল্য লাভ করতে। এইটাই স্বাভাবিক। তাই আজ আপনাদের সবার জন্য আফিলিয়েট মার্কেটিং-এ সফল হওয়ার জন্য কিছু টিপস এন্ড ট্রিকস দিবো, যা আপনাদের কাজে আসবে বলেই আশা করছি।

১। আপনার কাজকে ভালবাসুন

আমি সর্বদা এটিকে  এক নম্বর মনে করি। আপনি যা করেন তা যদি না ভালোবাসেন তবে আপনি কখনই সফল হতে পারবেন না। যদি আপনি কেবল অর্থের জন্য এটি করে থাকেন, তবে আপনার এবং মার্কেটিং সংস্থার কোনও কর্মচারীর মধ্যে কোনও পার্থক্য নেই যিনি তার চাকরিতে নরকের মতো উদাস হয়ে তাকে ঘৃণা করে। তবুও তিনি এটি চালিয়ে যাচ্ছেন যেহেতু এটি তার বিল পরিশোধ করে। আফিলিয়েট মার্কেটিং করতে চাইলে, আপনি যা করছেন তা ভালবাসা জরুরি। অন্যথায়, আপনি নতুন ধারণা এবং মার্কেটিং স্ট্রাটেজি নিয়ে আসতে পারবেন না, যা আফিলিয়েট মার্কেটিং -এ সাফল্যের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়।

২। ছোট ছোট পদক্ষেপ নিয়ে আগাতে শিখুন

আপনি কি প্রথম মাসে একটি ৫০০০ ডলার লাভ চান? একটু দাঁড়ান মসাই। অর্থ উপার্জনের কোন সুত্র বা যাদু নেই, ধির গতিতেই আওনাকে উঠতে শিখতে হবে। ৫০০০ ডলার তৈরি করতে প্রথমে আপনাকে $১ করতে হবে এবং এটিই সবচেয়ে শক্ত অংশ। তারপরে আপনাকে সেই $১ কে ১০ ডলারে পরিণত করতে হবে  তারপর ২০, তারপর ৩০… এটি একটি সম্পূর্ণ শেখার প্রক্রিয়া, এবং এটি সময় নেয়। আফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার কয়েক দিনের মধ্যে আপনি ছাদ দিয়ে অর্থ পড়তে দেখতে পারবেন না।



এটি একটি বিজ্ঞান: আপনাকে আপনার গ্রাহকদের মনোবিজ্ঞান বুঝতে হবে, তাদের আচরণগুলি বুঝতে হবে এবং প্রচুর অনুশীলন করতে হবে। সুতরাং আপনি কত তাড়াতাড়ি জিনিস তুলেছেন এবং শিখছেন তার উপর নির্ভর করে কয়েক সপ্তাহ থেকে কয়েক মাস পর্যন্ত কিছু লাগতে পারে।

৩। প্রতিনিয়ত অন্যের কাছ থেকে শিখুন

এটি আর একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।এমন লোকদের কাছ থেকে শিখুন যারা তাদের জিনিসগুলি জানেন, তাদের ফলো করুন, কীভাবে তারা কাজ করে তা দেখুন। এটি করার অনেকগুলি উপায় রয়েছে: আপনি হয় দক্ষতা শেখাতে আপনার সিনিয়র সহযোগীদের অর্থ প্রদান করতে পারেন, বা আফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কিত ফোরাম, ফেসবুক গ্রুপ, স্কাইপ গ্রুপ ইত্যাদিতে যোগদান করতে পারেন । সেরা বাজি হ’ল আপনাকে পড়াতে কাউকে ভাড়া দেওয়া।

৪। আপনি যেই পণ্য প্রচার করছেন তার সম্পর্কে ভালভাবে জানুন

আপনার এমন কোনও পণ্য প্রচার করবেন না যা সম্পর্কে আপনার কোনও ধারণা নেই, তাহলে কি আপনি কখনও তা দিয়ে সফল মার্কেটার হতে পারবেন? অবশ্যই না। সর্বদা গবেষণা করুন, দেখুন পণ্যটি কী, এর সুবিধাগুলি এবং অসুবিধাগুলি কী কী ইত্যাদি। এছাড়াও, কেন এই বিশেষ পণ্যটি তার প্রতিযোগিদের চেয়ে ভাল তা জানা গুরুত্বপূর্ণ। পণ্যটির বাজার সম্পর্কে জানুন।

এর মাধ্যমে, আমি বোঝাতে চাইছি কোন পণ্য বৈশিষ্ট্য উপলব্ধ, যা প্রতিযোগী পণ্যগুলিতে উপলব্ধ নয়, আপনার পণ্যটি কীভাবে আরও ভাল, এবং কেন গ্রাহকরা প্রতিযোগিতায় এটি কেনা উচিত তা সম্পর্কে জানুন। আপনি তখনই অন্যদের রাজী করাতে পারবেন, যখন আপনি নিজে এইটার সম্পর্কে পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে জানবেন।

৫। ধারাবাহিকতা

ব্যর্থতা কখনই আপনাকে নিচে নামিয়ে না দেয় বা সাফল্যের পথে আপনার বাধা যেন না হয়, এইটা তো আপনার নিশ্চিত করতেই হবে।  মনে রাখতে হবে ধ্বংসের পরই সৃষ্টি ।  সুতরাং হাল ছেড়ে দেওয়ার পরিবর্তে আবার উঠে দাঁড়ান এবং আপনি কোথায় ভুল করেছেন তা নির্ধারণ করার চেষ্টা করুন এবং নিজেকে সংশোধন করুন।

যারা চেষ্টা করে এবং ধারাবাহিক হয় তারা অবশেষে একটি সমাধান নিয়ে আসতে সক্ষম হয় এবং যারা ধারাবাহিক হতে পারে না তারা অবশেষে নিজেকে হারিয়ে ফেলে।আপনি যা করছেন তা যদি আপনি ভালবাসেন তবে আপনি অবশ্যই কিছু সমাধানের সাথে উপস্থিত হবেন এবং আপনার সমস্যার সমাধান করবেন।

৬। একটি পরিকল্পনা করুন

পরিকল্পনা করা সবসময় গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যখন কোনও অফার প্রচার শুরু করবেন, সেই পণ্যের মালিকের দৃষ্টিকোণ থেকে এটি সম্পর্কে ভাবুন আপনি যদি এই অফারটির মালিক হন তবে আপনি কি করতেন?এটি আপনাকে  আগে থেকেই সমস্ত দিক দেখার জন্য সঠিক মানসিকতা দিবে বলেই আশা করছি অফারটি বেছে নেওয়া থেকে শুরু করে প্রচার করা এবং প্রচার ব্যর্থ হলে কী করণীয় ইত্যাদি, এই পরিকল্পনাগুলি আপনাকে আপনার আফিলিয়েট মার্কেটিং কেরিয়ারে বড় করতে সাহায্য করেছে।

৭। আজই শুরু করুন

“আফিলিয়েট মার্কেটিং মারা গেছে” এই কথা টি বিশ্বাস করুন এক দশক ধরে শুনে আসছি। এটি কখনই মৃত হতে পারে না, তবে প্রযুক্তি বাড়ার সাথে সাথে কেবল আরও বাড়ছে। হ্যাঁ, যারা শর্টকাট ব্যবহার করছিলেন তাদের জন্য আফিলিয়েট মার্কেটিং মারা গেছে, কারণ শর্টকাট পদ্ধতির কোনও দিনই বেশি দিন স্থায়ী হয় না।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আগের চেয়ে অনেক বেশি লাভজনক। নতুন কৌশল এবং প্রযুক্তি কীভাবে গ্রহণ করা যায় তা কেবল আপনাকে বুঝতে হবে। নতুন বিজ্ঞাপন প্ল্যাটফর্মের সাথে খেলুন, আপনার শ্রোতাদের টার্গেট করার নতুন উপায়, তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ এবং নতুন মার্কেটিং  স্কপগুলি পরীক্ষা করুন।

৮। আপনার দল তৈরি করুন

দিন দিন, এক-ব্যক্তির ক্রিয়াকলাপ আরও কঠিন ও শক্ত হয়ে উঠছে, এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা ওয়ান-ম্যান অপারেশন থেকে ছোট ব্যবসায় পরিণত হচ্ছে। দল তৈরি করার জন্য অনেকগুলি কারণ রয়েছে তবে একটি বড় কারণ হ’ল – নিজের দল তৈরি করে – আপনি নিজের জীবন উপভোগ করার জন্য অবসর সময় পেতে পারেন।

এছাড়াও, একজন ব্যক্তির পরিবর্তে, আপনার প্রচারাভিযানে ৩-৪  জন লোক কাজ করতে পারে যা আপনার প্রচারণায় আরও ধারণা, উন্নতি এবং আরও বিভিন্ন বৈচিত্র্য এনে দিবে। যার ফলাফল আরও ভাল হয়।

৯। অ্যাক্টিভ থাকুন

তবুও, সফল হওয়ার জন্য, সক্রিয় হওয়া খুব জরুরি এবং এর জন্য আপনাকে আপনার মনকে সতেজ রাখতে হবে। নিয়মিত অনুশীলন করুন  সঠিকভাবে বিশ্রাম করুন, সম্পর্ক, ডায়েট এবং জীবনের আপনার সাধারণ দৃষ্টিভঙ্গির ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যকর জীবনধারা রাখুন। সক্রিয় থাকা খুব জরুরি কারণ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সৃজনশীলতার দাবি করে এবং আপনি যখন অলস বা ক্লান্ত বোধ করছেন তখন আপনি কখনই সৃজনশীল হতে পারবেন না।

তবে, আমি লক্ষ্য করেছি, যদি সক্রিয় ও সতেজ মন নিয়ে ২,৩ ঘন্টা কম কাজ করলেও, কাজ সর্বদা বেশি ফলদায়ক হয় এবং ফলাফল যদি আমি এক সপ্তাহ ধরে অলসতা বা ক্লান্তি নিয়ে কাজ করি তার চেয়ে ভাল।

সুতরাং, আপনার সতেজ মন থাকলে, আপনার কাজটি দিগুন সহজ হয়ে যাবে।

১০। সৎ থাকুন

আপনার সৎ হতে হবে – এটিই হ’ল সর্বকালের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। মনে রাখবেন অসৎ উপায়ে খনিকের সুখ ছাড়া কিছুই পাবেন না। সৎ পথে কাজ করুন, আল্লাহ্‌ আপনার পাশে আছেন, আর চিরদিনই থাকবে। আপনি শুধু নির্দ্বিধায় এগিয়ে যান।

আশা করছি এই ১০ টি টিপ্স্‌ আপনাদের অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং-এ কিছু হলেও সাহায্য করবে। আপনাদের সবার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করে আজ এইখানেই বিদায় নিচ্ছি।