কীটনাশকের বিকল্প হিসেবে কাজ করছে হাস

ফসল বা গাছ-গাছালিতে কীটনাশক দেয়া হয় সেটি আমাদের সকলের জানা

কিন্ত এবার কীটনাশকের পরিবর্তে জমিতে হাস ব্যবহার করছে জাপানী কৃষকরা তাতে বেশ ভালো ফল ও আসছে কৃষকদের।ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের তৈরি করা এক পতিবেদনে তেমনি বিলা হয়েছে।

ব্রেড ডাক নামে পরিচিতি বিশেষ প্রজাতির একটি হাস।ফসলের জমিতে কীটনাশকের ভূমিকায় ভীষন ভাবে কার্যকারী বলে জানা গেছে। হাসদেরকে হ্মেতে ছেরে দেন চাষীরা।তারা তখন জমির সব পোকা মাকোড় ও আগাছে খেয়ে ছাপ করে ফেলে।তবে এতে ধান গাছের কোন হ্মতি হয় না। শুধুমাত্র আগাছাই নয় আগাছার বীজ ও খেয়ে ফেলে এ হাস গুলো।

 

তার পরবর্তী মৌসুমে ঐ জমির আগাছা খুব কম এই হয়। এই পদ্ধতিতেই বেড়ে ওঠা ফসল ঘুর্নিঝড় এবং প্রাকৃতিক দূর্যোগের মধ্যে ও টিকে থাকার লড়ায়ে অন্যদের চেয়ে অনেক শক্তিশালী হয়ে থাকে। এটি পরিবেশের জন্য খুব এই ভালো। এর একটাই অসুবিধা বয়স হ’লে যখন হাস গুলো খুব নাদুস-নূদুস হয়ে যায়।তখন শরীরের ভার সাম্য রাখতে না পারায় ধান গাছগুলোকে মাড়িয়ে দেয় অনেক অনেক সময়।তাই প্রতি বছর নতু নতুন হাসের প্রয়োজন পড়ে।

এই পদ্ধতিতে চাষাবাদ করে রাসায়নিক এর উপর নির্ভরশীলতা অনেকটাই কমিয়ে আনা সম্ভব।এতে আমাদের পরিবেশের ও অনেক উপকার হবে।

Related Posts

12 Comments

মন্তব্য করুন