Connect with us
★ Grathor.com এ আপনিও ✍ লেখালেখি করে আয় করুন★Click Here★

লাইফস্টাইল

বন্ধুত্ব নিয়ে স্ট্যাটাস – বন্ধুত্ব নিয়ে ভালো লাগার মত কিছু বিখ্যাত বানী বা উক্তি

Bipon 360

Published

on

বন্ধুত্ব নিয়ে ভালো লাগার মত কিছু বিখ্যাত লেখকমনিষী গুণীজনদের স্বরণীয় নির্বাচিত ৫০টি বানী বা উক্তি

1) একটি ভালো বই একশ জন বন্ধুর সমান । কিন্তু একজন ভালো বন্ধু একটি লাইব্রেরীর সমান । – ডক্টর এ.পি.জে আব্দুল কালাম ।
2) বন্ধুত্ব হচ্ছে চুইংগামের মতো হৃদয়ের কাছাকাছি, যা একবার মনে স্থান করে নিলেই হলো, ছাড়তে চাইলেও তা সম্ভব হয় না।
3) বন্ধুত্ব তিন ধরনের (১) খাবারের মত, যাদের ছাড়া চলে না। (২) ঔষধের মত, যাদের মাঝে মাঝে দরকার হয়।(৩) অসুখের মত, যাদের কেউ চায় না।
4) অন্ধকারে একজন বন্ধুর সঙ্গে হাঁটা আলোতে একা হাঁটার চেয়েও ভালো।- হেলেন কিলার
5) আমার বন্ধুর জন্যে সবচেয়ে বেশি যা করতে পারি তা হোল শুধু বন্ধু হয়ে থাকা।তাকে দেয়ার মতো কোন সম্পদ আমার নেই। সে যদি জানে যে আমি তাকে ভালবেসেই সুখী, সে আর কোন পুরস্কারই চাইবে না।এক্ষেত্রে বন্ধুত্ব কি স্বর্গীয় নয়?- হেনরি ডেভিড থিওরো
6) আহ্, কী ভালোই না লাগে – পুরনো বন্ধুর হাত।– মেরি এঙলেবাইট
7) একজন বিশ্বাসী বন্ধু দশ হাজার আত্মীয়ের সমান– ইউরিপিদিস [গ্রীক নাট্যকার]
8) একজন সত্যিকারের বন্ধু কখনো বন্ধুর আচরণে ক্ষুব্ধ হয়না। – চার্লস ল্যাম্ভ বন্ধুদের মধ্যে সব কিছুতেই একতা থাকে।- প্লেটো
9) কখনো কোন বন্ধুকে আঘাত করো না, এমনকি ঠাট্টা করেও না।– সিসেরো
10) কাউকে তোমার সামনে অন্যের দোষ-ত্রুটি বর্ণনা করতে দেখলে তৎক্ষণাৎ তাকে বন্ধুর তালিকা থেকে দূরে সরিয়ে দিও।-মামুনুর রশীদ
11) কোন মানুষই অপ্রয়োজনীয় নয় যতোক্ষন তার একটিও বন্ধু আছে।– রবার্ট লুই স্টিভেন্স
12) কোনো বন্ধু যদি তোমার গোপন কথা প্রকাশ করে দেয়, তবে সেজন্য তাকে দোষ না দিয়ে নিজেকে শাসন করো। কেননা, নিজের গোপন কথা তুমি তার কাছে প্রকাশ করলে কেন?
13) গোপনীয়তা রক্ষা না করে চললে কোনবন্ধুত্ব টিকে না।– চার্লস হেনরি ওয়েব
14) তুমি আমার কথা মেনে মূর্খের বন্ধুত্ব থেকে দূরে থাকো। মূর্খের বন্ধুত্ব জ্ঞানীকে বরবাদ করে দেয়। মূর্খের সঙ্গে বন্ধুত্বের পরিণামস্বরূপ মানুষ তোমাকে মূর্খ বলে স্মরণ করবে।- হযরত আলী (রা.)
15) দুঃখ নিজেই নিজের খেয়াল রাখতে পারে, কিন্তু আনন্দের পুরোটা উপভোগ করতে চাইলে অবশ্যই তোমাকে তা কারো সঙ্গে ভাগ করে নিতে হবে।– মার্ক টোয়েন
16) নিয়তি তোমার আত্মীয় বেছে দেয়, আর তুমি বেছে নাও তোমার বন্ধু।– জ্যাক দেলিল [১৭৩৮- ১৮১৩], ফরাসী কবি
17) পার্থিব জীবনে কোনো মানুষই বন্ধু বা সঙ্গীর সাহচর্য বা প্রভাব থেকে মুক্ত নয়। তাই সঙ্গী যদি ভালো হয়, বন্ধু যদি চরিত্রবান হয়, সাথী যদি আদর্শবান হয়, তবে সহযাত্রী অপর সঙ্গীও ভালো হতে বাধ্য। অপরদিকে সঙ্গী যদি অসৎ হয়, তবে সাথীও চরিত্রহীন হয়ে যাবে।’
18) প্রকৃতির সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টির নাম বন্ধুত্ব।–এমারসন
19) প্রত্যেক নতুন জিনিসকেই উৎকৃষ্ট মনে হয়। কিন্তু বন্ধুত্ব যতই পুরাতন হয়,ততই উৎকৃষ্ট ও দৃঢ় হয়।–এরিস্টটল
20) লোক তার সঙ্গীর স্বভাব-চরিত্র দ্বারা প্রভাবিত। অতএব সে যেন খেয়াল রাখে কার সঙ্গে সে বন্ধুত্ব করছে।- প্রিয় নবীজি (সা.)
21) বন্ধত্ব একমাত্র সিমেন্ট যা সবসময় পৃথিবীকে একত্র রাখতে পারবে।– উইড্রো উইলসন
22) বন্ধু কি? এক আÍত্মার দুইটি শরীর।– এরিস্টটল
23) বন্ধুত্ব একমাত্র সিমেন্ট যা সবসময় পৃথিবীকে একত্র রাখতে পারবে।- উইড্রো উইলসন
24) বন্ধুত্ব হলো তরমুজের মতো। ভালো একশটিকে পেতে হলে এক কোটি আগে পরীক্ষা করে দেখতে হয়। – ফরাসী প্রবাদ
25) বন্ধুদের মধ্যে সবকিছুতেই একতা থাকে– প্লেটো
26) বিশ্বস্ত বন্ধু হচ্ছে প্রাণরাকারী ছায়ার মতো। যে তা খুঁজে পেলো, সে একটি গুপ্তধন পেলো।–নিটসে
27) বীরের পরীক্ষা হয় যুদ্ধের ময়দানে, বন্ধুর পরীক্ষা হয় বিপদের সময় এবং বুদ্ধিমানের পরীক্ষা হয় ক্রোধান্বিত অবস্থায়।-(ইমাম জমখশরী (রহ.) এর বাণী)
28) যদি তুমি মানুষকে বিচার করতে যাও তাহলে ভালবাসার সময় পাবে না।– মাদার তেরেসা
29) যার ক্রোধ বেশি, এরূপ ব্যক্তির ভাগ্যে অন্যের বন্ধুত্ব কমই জুটে থাকে।-হযরত ফুজায়েল ইবনে আয়াজ (রহ.)।
30) যারা কোনো স্বার্থের বশবর্তী হয়ে তোমার কাছে আসে, পরীক্ষা না করে তাদের বন্ধুত্বের প্রতি আস্থা স্থাপন করো না। যাকে তুমি ঘৃণা করো, তাকে ভয় করে চলো।- বড়পীর হযরত আবদুল কাদের জিলানি (রহ.)
31) যারা বন্ধুদের অপমান করে, বন্ধুদের অপমানিত হতে দেখে কাপুরুষের মতো নীরব থাকে তাদের সঙ্গে সংসর্গ করো না ।- সিনেকা
32) যে ইচ্ছাপূর্বক বন্ধুকে ঠকায়, সে তার খোদাকেও ঠকাতে পারে ।– লাভাটাব
33) যে ব্যক্তি কথায় কথায় রাগ ঝাড়তে থাকে, তার বন্ধু পাওয়া কঠিন।’-বুআলী সিনা
34) যে ব্যক্তি নির্দোষ বন্ধুর তালাশে থাকে চিরদিন তাকে বন্ধুহীন থাকতে হবে।-কায় সার-খসরু
35) যে ব্যক্তি প্রতিশোধ স্পৃহার আগুনে জ্বলতে থাকে, তার অন্তরের রক্তক্ষরণ কখনো বন্ধ হয় না।-বুআলী সিনা
36) শত্রুর চেয়ে বন্ধুকে হাজার গুণ বেশি ভয় করো। কেননা বন্ধু যদি কখনো শত্রুতে পরিণত হয়, তবে শত্রুতা উদ্ধার করার হাজার পথ তার সমানে খোলা থাকে।-জনৈক বুজুর্গ
37) সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস, অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ।’ তাই জীবনকে সুন্দর করতে হলে অসৎ সঙ্গ ত্যাগ করতে হবে। অসৎজনের সঙ্গে সম্পর্ক রেখে কখনো ভালো হওয়ার আশা করা যায় না। তা ছাড়া প্রত্যেক ব্যক্তি হাশরের দিন তার বন্ধুর সাহচর্য লাভ করবে।’
38) সম্পদ বন্ধু আকর্ষণ করে। দরিদ্র মানুষ আত্মীয়ের কাছেও প্রত্যাখ্যাত হয়। গুণের আকর্ষণে যে বন্ধুত্ব সৃষ্টি হয়, এটাই সাধারণত স্থায়ী হয়ে থাকে। সঙ্গীহীন, নিঃসঙ্গ একাকী জীবনে মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে। তাই তার জন্য চাই বিশ্বস্ত বন্ধু, সহযোগী বা সহ্যাত্রী। তবে এই বন্ধু হতে হবে সৎ মানুষ। সঙ্গী বা বন্ধু না হলে জীবন-জগৎ ও পরকালের সবই ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। তাই ইসলামও সঙ্গী নির্বাচনে, সৎসঙ্গ লাভে সৎসঙ্গের সাহচর্যে থাকার ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করছে। সৎসঙ্গ মানব জীবনকে চারিত্রিক উৎকর্ষের উচ্চ শিখরে নিয়ে যায়। তেমনি অসৎ সঙ্গ ঢেকে আনে ধ্বংস।- হযরত সুলায়মান (আ.)
39) সম্পর্ক যখন জ্বরে পুড়ে তখন তার নাম হয় ভালবাসা, আর ভালবাসা যখন জ্বরে পুড়ে তার নাম হয় বন্ধুত্ব।–প্রাচিন প্রবাদ
40) সর্বোৎকৃষ্ট আয়না হলো একজন পুরনো বন্ধু।– জর্জ হার্বাট
41) সেই তোমার সত্যিকার বন্ধু, যে তোমার সঙ্গে থাকে। তোমার কল্যাণের জন্য নিজের ক্ষতি করে। হঠাৎ করে তোমার অবস্থা শোচনীয় হলে সে নিজের সুখ বিসর্জন দিয়ে তোমাকে সুখ দান করে।- হযরত আলী (রা.)
42) হে বন্ধু তুমি যদি একশ বছর বেঁচে থাকো, আমি যেনো একদিন কম বাঁচি, যাতে তোমায় একদিনের জন্যেও মিস না করি।–তানবীর

43) বন্ধুত্ব আমাদের নানান প্রয়োজনে, যেমন নানান প্রয়োজনের আমারা নানান পোষাক পরিধান করি। বিয়ের পাগড়ীতে, বিয়ের শাড়ীতে দ্বিতীয় বার সাজতে চাই না, বিয়ের পাগড়ী, বিয়ের শাড়ী এগুলি প্রেমের পোষাক একবারেই পরিধান করতে হয় আর বন্ধুত্বের পোশাক সারাজীবন পরা যায়
প্রযুক্তির কল্যাণে এখন মানুষের বন্ধুর অভাব হয় না। অভাব হয় প্রকৃত বন্ধুর। যতোই আমরা প্রযুক্তির দিকে ধাবিত হচ্ছি, ততোই আমাদের মাঝে রোবটিকতা কাজ করছে। আর কমে যাচ্ছে প্রকৃত বন্ধু। সঙ্কুচিত হচ্ছে আমাদের আবেগ।

[the_ad_group id=”299″]

[ইন্টারনেট হতে সংগ্রহীত]
বন্ধুত্ব হল দুটি মানুষের মধ্যে আত্নিক সম্পর্ক, যেখানে থাকেনা কোন হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ-লালসা, পরশ্রীকাতরতা। নিখাদ বন্ধুত্ব হচ্ছে সেই সম্পর্ক যেখানে একজন আরেকজনকে নিস্বার্থভাবে সাহায্য করে, সুসময়ে, দুঃসময়ে, সবসময় তার পাশে থাকে।বন্ধুত্ব এমন একটি সম্পর্ক যার মাঝে জড়িয়ে আছে ভালবাসা ও আবেগ। আপনার আনন্দ এবং দুঃখে আপনার পাশে কেউ না থাকলে আনন্দ যেমন বহুলাংশে মাটি হয়ে যায়, তেমনি দুঃখও সহজে হালকা হয় না। মানুষ যখন বেদনাভারাক্রান্ত হয়ে ওঠে তখন বন্ধুর কাছ থেকে সে প্রথম সান্ত্বনা পায়, আর যখন আনন্দে উদ্বেল হয়ে ওঠে তখন এ আনন্দের খবর সে প্রথম বন্ধুকেই জানায়। বন্ধুত্ব কখনো কারো আর্থিক ও বাহ্যিক অবস্থান দেখে হয় না …মনের অজান্তে গড়ে ওঠে এই বন্ধুত্ব। আর এই বন্ধুত্ব টিকে থাকে পারস্পরিক চিন্তাভাবনা ও মূল্যবোধের গুরুত্ব দেওয়া,ও কম্প্রোমাইজ করার প্রবনাতার উপর ..

✮ ✮ ✮ বন্ধুত্ব মানে গোপন কথার অনেকখানি ভাগ, প্রান খোলা হাসির সাথে একটুখানি রাগ। বন্ধুত্ব মানে দুষ্টুমি আর একটু অভিমান, মনের মাঝে কোথায় যেন একটু খানি টান।”
✮ ✮ ✮ গোটা পৃথিবীর কাছে তুমি একজন মানুষ মাত্র, বন্ধুর কাছে তুমি গোটা পৃথিবী। ভালো বন্ধু সে-ই যে মনে করে, তুমি একটা ভালো ডিম, যদিও সে জানে ডিমটা খানিকটা ফাটা।
বন্ধুত্ব দিবসঃ
——————
১৯১৯ সাল থেকে আগস্টের প্রথম রবিবার বন্ধুত্ব দিবস বন্ধুত্ব দিবস পালিত হয়ে আসছে। হলমার্ক কার্ডের প্রতিষ্ঠাতা “জয়েস হল” এই দিনটিকে বন্ধুত্ব দিবস হিসেবে উন্নীত করেন। এবং এই দিন সবাই একে অন্যেকে কার্ড পাঠাত।
তবে, বন্ধুত্ব দিবসের ইতিহাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে শুরু। ১৯৩৫ সালে আমেরিকান সরকার আগস্টের প্রথম শনিবার এক ব্যক্তিকে হত্যা করে। প্রতিবাদে ও শোকে পরের দিন ওই ব্যক্তির এক নিকট বন্ধু আত্মহত্যা করেন। এরপরই বন্ধুদের ভালোবাসার প্রতি সম্মান জানানোর জন্য আমেরিকান কংগ্রেসে ১৯৩৫ সালে আগস্টের প্রথম রোববারকে বন্ধু দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। এর পর থেকেই প্রতিবছর আগস্টের প্রথম রবিবার বিশ্বব্যাপী বন্ধু দিবস বা ফ্রেন্ডশীপ ডে পালিত হয়। সেই থেকে বন্ধুত্ব দিবস হয় জাতীয় উদযাপিত দিনগুলোর মধ্যে একটি । খুব শীঘ্রই এটি খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং আন্তর্জাতিক বন্ধুত্ব দিবসের এর রুপ লাভ করে।
বিশ্ব বন্ধুত্ব দিবস ধারণাটি ১৯৫৮ সালের ২০ জুলাই ডঃ Artemio Bracho দ্বারা প্রস্তাবিত হয়,যখন তিনি তাঁর বন্ধুদের সাথে “পুয়ের্তো
Pinasco” তে (নদীর তীরে একটি শহর যা উত্তর Asuncion,Paraguay থেকে প্রায় ২০০ মাইল দূরে অবস্থিত) ডিনার করছিলেন।
কিন্তু বন্ধুত্ব দিবস বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন তারিখে পালন করা হয় প্রথম বিশ্ব বন্ধুত্ব দিবস ৩০ জুলাই করার জন্য প্রস্তাবিত হয়ে ছিল ১৯৫৮ সালে। ২৭ এপ্রিল ২০১১ জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ঘোষিত হয় ৩০ জুলাই official International Friendship Day ৷
এই উপমহাদেশে সর্বপ্রথম ভারতে এই দিবসের প্রচলন শুরু হয়। তবে ভারত সহ কিছু দেশে আগস্টের প্রথম রবিবার বন্ধুত্ব দিবস উদযাপন করে৷
পরবর্তীতে নব্বইয়ের দশকের দিকে বাংলাদেশে বন্ধু দিবস পালন করা শুরু হয়। এর পর ইন্টারনেট ও টিভি চ্যানেল গুলোর মাধ্যমে বন্ধু দিবস পালনের প্রসার ঘটে। বর্তমানে বেশ ঘটা করেই বন্ধু দিবস পালন করা হয়।
Keyword:
বন্ধুত্ব নিয়ে স্ট্যাটাস,
বন্ধু নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস,
বন্ধু নিয়ে কিছু উক্তি,
বন্ধুত্ব নিয়ে কবিতা,
বন্ধু নিয়ে ছন্দ,
বন্ধু নিয়ে কিছু কথা,
বন্ধুত্বের ছোট কবিতা,
বন্ধুদের নিয়ে কিছু কথা,
বন্ধুদের নিয়ে কবিতা

Advertisement
46 Comments
Subscribe
Notify of
46 Comments
Oldest
Newest
Inline Feedbacks
View all comments
jahid hossain

অসাধারন

Tamim Ahmed SAKIB

Wow

Tamim Ahmed SAKIB

😍😍

jubair hossain

khob sondor

Utsa Kumer

nice

Sabina Akter

Vlo kotha bolcen

Sanjida Afrin

Nice

abu bakkar

good post

ramal chakma

nc

Shadhin Ali

সুন্দর পোস্ট

Ratul Foysal

Gd

Mohammad Ariful Islam

👍

Trina Sarkar

Gd

Farhana Siddiqui

Wow

Shanta Akter

Osm

Angel Ratri

Nice

Partha Kumar

Nice

jakariya jakariya

Nice

Mojammal Haque

গুড

Md Golam Mostàfa

Life is impossible without friend.

Tawshiqur Rahman

You are right. Without friend life is impossible.

Mojammal Haque

Hmm

Al Shahria Atik

Nice

Habib Adnan

Joss

Parvej Abir

খুবই ভালো লাগলো

Aysha Binte

nice

Md Imamul Hasan Ishad

wow

Md Mehedi Hasan

thanks

Abir Hasan

friendship…..an immortal bound

Rafi t

Nice

Md Rumi

Valo kotha bolecen

MD Rahul

n

Zillur Rahman

পরিপক্ব লেখক!

Zillur Rahman

খুব সুন্দর হইছে।

Arman Hossan

gd

Md Shakil

Great

Marzia Rahman

friendship rocks!!!

Abdul Ahad

Nice

Trimiti Chakma

চমৎকার

Ibna Mezan

gd

Naim Ali

Excellent

Farhana liza Farhana liza

অনেক ভালো লিখেছেন বন্ধুত্ব নিয়ে।

Ashrafi

Wow

Azharul Islam Sojib

Wow

Farhana liza Farhana liza

Very nice

kamrum naher123

খুব ভালো

লাইফস্টাইল

খোলা চুল নিয়ে উক্তি

Maria Hasin Mim

Published

on

আসসালামু আলাইকুম সুপ্রিয় পাঠক এবং পাঠিকাগন। কেমন আছেন আপনারা সবাই ?আশা করি আপনারা সকলে যে যার অবস্থানে ভালো আছেন এবং সুস্থ আছেন। আপনারা সকলে নিজ নিজ অবস্থানে ভালো থাকুন এবং সুস্থ থাকুন সেই কামনায় করি। খোলা চুল নিয়ে উক্তি

চুল সৌন্দর্যের  এক অলংকার স্বরূপ। রেশমি ঘন কালো চুলে মুগ্ধ হয়ে কত কবি সাহিত্যিক  যে গান ,কবিতা রচনা করেছেন তার কোনো ইয়ত্তা নেই। তাই চুল এক ধরনের সম্পদ। চুল নারীদের ক্ষেত্রে তাই অলংকার স্বরূপ। লম্বা চুলের কদর রয়েছে তাই যুগ  যুগ ধরে, কালে কালে রয়েছে।তাই চুল নিয়ে নারীদের চিন্তার শেষ নেই। কত যত্ন যে করে থাকে লম্বা চুলের জন্য তার ইয়ত্তা নেই। তাইতো এখনো মানুষ লম্বা চুলের পাগল।

তবে চুল এমন এক সৌন্দর্যের প্রতীক যা প্রতীকী অর্থে কখনোই বর্ণনা করা যাবে না।নারীর রুপ এবং সৌন্দর্যের এক অন্যতম অংশ হলো চুল।চুলের সৌন্দর্য তাই চুল জানে। চুল তাই বাধা নয় খোলায় সুন্দর। বাধা চুলে কখনো চুলের আসল সৌন্দর্য বুঝা যায় না। চুলের আসল সৌন্দর্য রয়েছে তাই খোলা চুলে।স্নিগ্ধ বাতাসে যখন চুল ঢেউ খেলে যায় তখন সেই সৌন্দর্যের কোনো হিসাব খুঁজে পাওয়া যায় না।

নারীর খোলা চুল নিয়ে তাই কবির কাব্বিকতার কোনো শেষ নেই। খোলা চুল নিয়ে তাই গুণীজনদের উক্তির শেষ নেই। খোলা চুল এ মুগ্ধ হয়নি এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া যাবে না।কেউ মুগ্ধ হতে রচনা করেছে কাব্য। কেউ কবিতা আর উক্তি।তাই নিচে খোলা চুল নিয়ে রচিত কিছু উক্তিসমূহ তুলে ধরা হলোঃ

উক্তি ১:
“হারানোর জন্য
তোমার খোলা চুল এবং চোখের কাজল যথেষ্ট”
উক্তি ২:

“কোনো এক পড়ন্ত বিকেলে বারান্দায় দাঁড়িয়ে
রেশমি কালো চুলের ঢেউ মুগ্ধ করে আমাকে “।

উক্তি ৩:

“খুলে দাও তুমি এই চুলের বাঁধন
অবাধ্য হয়ে না হয় সে বাতাসেই উড়ুক “।

উক্তি :৪
“ইচ্ছে হয় হাড়িয়ে যাই
ওই খোলা চুলের গভীরতায়”।

উক্তিঃ৫

“খোলা চুল তুমি বলে দাও
কেনো মুগ্ধ না হবে কেউ তোমার মায়ায়”।

সামনে নতুন কোন টপিক নিয়ে হাজির হবো আপনাদের সামনে।ধন্যবাদ সবাইকে।

ঘরে থাকুন
সুস্থ থাকুন

Continue Reading

গল্প

সাদিয়ার একটি বিড়াল ছিলো

Naeem Hassan

Published

on

সাদিয়া তার ছোট্ট বিড়ালটিকে প্রচন্ডভাবে ভালোবাসতো।
দেখা যেত দিনের বেশির ভাগ সময় বিড়ালটির সাথে সাদিয়ে খেলা করতো।সাদিয়ার বয়স মাত্র নয় বছর। দুপুরে খাওয়ার সময় বিড়ালটিকে তার পাশেই রাখতো সাদিয়া।নিজে খাওয়ার সাথে সাথে বিড়ালটিকেও মাছ খাওয়াতো,দুধভাত খাওয়াতো।যেন তার মুখে হাসি লেগেই থাকতো,ছোট বাবুটির সাথে বিড়ালটাও খুব ভালোভাবে মিশে গেছিলো।সাদিয়া বিড়ালটিকে প্রতিদিন গোসল করাতো,আর বিড়ালটিও ঘুরে ঘুরে সঠিক সময় চলে আসতো গোসলের জন্য।তারা অনেক খুশি ছিলো।
সাদিয়া তার বাবার একমাত্র মেয়ে।তো যাইহোক, এভাবেই দেখতে দেখতে ৬ মাস হয়ে গেলো।বলে রাখা ভালো সাদিয়ার পরিবার খুব দরিদ্র ছিলো যার কারনে তারা একটা বাসায় ভাড়া থাকতো।তো এভাবে চলতে থাকলো, একসময় বাসা ওয়ালা আন্টি এসে সাদিয়ার মাকে জানালো যে আপনাদের বিড়াল আমাদের বাসার মাছ চুরি করে খায়,আমাদের বাসায় রুম নোংরা করে,ইদুর খেয়ে বমি করে রাখে নানান অভিযোগ দিয়ে বললো যে বিড়ালটিকে বাসায় রাখা যাবেনা।এরপর সাদিয়া এটা শুনে কান্না শুরু করে দিলো,এই সুন্দর ফুটফুটে বাচ্চার চোখে জল কিভাবে দেখতো তার বাবা মা।অনেক রিকুয়েষ্ট করার পরও বাসাওয়ালা মানলো না।
বললো এমনি তো ২ মাসের ভাড়া পাওয়া যাবে,বাসা ভাড়া ঠিক সময় দেন না তারপর আবার বিড়াল রাখার এত শখ?তাহলে নিজে বাসা করে বিড়াল পোষেন।এই কথায় সাদিয়ার বাবা খুব আঘাত পেলো।তারপর সাদিয়ার বাবা ঠিক করলো রাতের অন্ধকারে বিড়ালটিকে অনেক দূর নিয়ে গিয়ে ফেলে দিয়ে আসবে।সাদিয়াকে জানাবেও না।যেমন ভাবা তেমন কাজ,ঘড়ি কাটায় কাটায় রাত ১২.০০ টা।একটা ছোট বস্তা নিয়ে বিড়ালটিকে ভরে নিলো,ঠিক সেই সময় বিড়ালটি ম্যাও ম্যাও করতে লাগলো সে কি ডাক,গম্ভির ডাক,কান্নার ডাক,সাধারণভাবে ম্যাও ম্যাও করছিলোনা বিড়ালটি,মোটা কন্ঠে,গভীর থেকে যেন বলতে চাচ্ছিলো আমাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছো?আমাকে নিয়ে যেও না,আমাকে থাকতে দাও।সাদিয়ার বাবাও বিড়ালটিকে অনেক ভালোবাসতো।
বিড়ালটির আর্তনাদে সাদিয়ার বাবার চোখ থেকে ঝর ঝর করে পানি ঝরতে লাগলো,সাদিয়ার মা বলে উঠলো,ওগো থাক না,আরেকবার বাসা ওয়ালাকে বলে দেখিনা? কিন্তু তারা ভালো করেই জানতো এরপর এ নিয়ে কিছু বলতে গেলে অপমানের সাথে সাথে বাসাটাও ছাড়তে হবে।সব কিছু বিবেচণা করে সাদিয়ার বাবা সাইকেল করে বিড়ালটিকে নিয়ে রওনা হলেন।আর চোখ মুছতে মুছতে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে এক জংগলের সামনে এসে দাড়ালেন।এবং বিড়ালটিকে ছেড়ে দিলেন।কিন্তু বিড়ালটি এক পা নড়লো না।সেই করুণ সুরে কান্নার মত করে ম্যাও ম্যাও করতে লাগলো এক সময় সাদিয়ার বাবার পা ঘেসা দিতে লাগলো।সাদিয়ার বাবা কষ্টে ফেটে পড়লো বসে পড়লো বিড়ালটির পাশে আর আদর করে কান্নায় বলতে লাগলো,আমি পারলাম নারে,আমি পারলাম না তোকে রাখতে।বলে উঠে সাইকেলে করে জোরে প্যাডেল করে চলে আসতে লাগলো আর বিড়ালের গম্ভির ডাক তখনো স্পষ্ট শোনা যাচ্ছিলো।
কান্না করতে করতে বাসায় ফিরে আসলো।কিন্তু সাদিয়ার বাবা সেই রাতে ঘুমাতে পারলোনা।সকালে ঘুম থেকে সাদিয়া উঠেই দেখলো বিড়ালটি তার পাশে নেই যা আগে কখনো এমন হয়নি।সাদিয়া বলতে লাগলো আম্মু আমার বিড়াল কই?তুমি কি দেখেছো?এই প্রশ্নের উত্তর কিভাবে দিবে ভাবতেই তার মায়ের চোখে জল চলে আসলো।বললো তুমি আসো খেয়ে নেও বিড়াল বাইরে কোথাও গেছে চলে আসবে।এই কথা বলে সাদিয়াকে শান্ত করলো।এভাবে দুপুরেও বিড়ালটি ফিরলোনা।সাদিয়া কান্না শুরু করে দিলো আম্মু আম্মু আমার বিড়াল এনে দাও না,ও আম্মু আমি তোমার সব কথা শুনবো,আম্মু তুমি যা বলবে তাই করবো আমার বিড়াল এনে দাও আম্মু।
তার মা সাদিয়ার কান্না সহ্য করতে পারছিলোনা।তাকে বুকে টেনে নিয়ে বললো তোমার বিড়াল চলে আসবে বাবা কাদেনা।দুপুরে সাদিয়া কিচ্ছু খেলো না কোনভাবেই,দরজা বন্ধ করে শুধু কান্না করতে লাগলো,এভাবে সে শুধু তার বিড়ালের স্মৃতি গুলো মনে করে কাদছিলো।তারপর এভাবে সাদিয়া ৩ দিন পর্যন্ত ভালো মতো খেলো কিছু।পরে এই অবস্থা দেখে সাদিয়ার বাবা বাসা ছেড়ে দেয়ার কথা ভাবলো।এই বাসায় থাকা চলে না।পরের দিনেই সাদিয়ার বাবা বিড়ালটি কে খুজতে বের হলো।
কিন্তু কোথাও খুজে পেলো না জংগলের আসে পাশে সব জাগায় খুজে ক্লান শরীর নিয়ে বাসায় ফিরে এলো।সাদিয়ার মুখের হাসিটা যেন কোথায় হারিয়ে গেছে ঠিক মত খায় না।ঘুমোই না,টিভিও দেখে না।মাঝে মাঝে কান্না করে,বিড়ালের খাবার দেয়া বাটি টা নিয়ে বসে থাকে।ছোট্ট মেয়েটির এই কষ্ট কোনভাবেই মেনে নিতে পারছিলোনা তার মা। তার মা গিয়ে সাদিয়ার বাবা কে বললো দেখো যেভাবে হোক বিড়াটা খুজে আনো।আমি আর নিতে পারছি।প্লিজ নিয়ে এসো প্লিজ।সাদিয়ার বাবা প্রচন্ড কষ্ট পেলো,আর ভাবতে লাগলো সে জীবনে কি করলাম? আমার মেয়েটাতো কোটি টাকার কিছু চাই নি।এই ছোট্ট জিনিসটাও তাকে দিতে পারলাম না ভেবে নিজেকে দোষারোপ করলে লাগলো নিজেকে ঘৃণা করতে লাগলো।আর বাসা ছেড়ে দেয়ার মাত্র ২ দিন বাকি।তারপর নতুন বাসায় চলে যাবে তারা।
সময় ঘনিয়ে আসলো।কিন্তু বিড়ালটি ফিরলো না।পরের দিন সকালে সাদিয়া উঠনে বসে সেই শীতল ভেজা চোখ নিয়ে। ঠিক তখনি একটা আওয়াজ আসলো ম্যাওওও!! কি অবাক দুর্দান্ত ব্যাপার বিড়াল টি ফিরে এসেছে,কিভাবে এসেছে কেউ জানেনা কিন্তু এসেছে সাদিয়া চিতকার করে উঠলো মা মা মা আমার বিড়াল উল্লাসে আনন্দে কেদে উঠলো।বিড়ালটিকে সাথে সাথে কোলে তুলে নিয়ে বুকে জড়িয়ে বলতে লাগলো কোথাই ছিলা তুমি আমাকে ছেড়ে কেনো গেছিলা তুমি?জানোনা তোমাকে ছাড়া আমার কত কষ্ট হয়।
এভাবে তার মা এই দৃশ্য দেখে তার মা পর্যন্ত কেদে ফেললো।দৌড়ে গিয়ে তার বাবাকে ফোন করলো।তার বাবা অফিস ছেড়ে একবারে ছুটে বাসায় চলে আসলো।এবং তারপর তার মেয়েকে জড়িয়ে বললো মা তোমার বিড়াল আর কোনদিন তোমায় ছেড়ে যাবে না মা, কোনদিন তোমায় ছেড়ে যাবেনা।
ভালোবাসা শুধু দুটি মানুষের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে না,অনেক সময় নিজের অজান্তে আমরা ছোট ছোট প্রানীকে এত ভালোবেসে ফেলি যা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।

Continue Reading

লাইফস্টাইল

ঘরে বসে পারলারের মত ফেসিয়াল

Sharmin Akter

Published

on

ত্বকের যত্নে ফেসিয়াল অনেক গুরুত্বপূর্ণ। মাসে অন্তত পক্ষে ফেসিয়াল করানো উচিত । ফেসিয়াল করলে ত্বক গভীর থেকে পরিষ্কার হয়,মরা কোষ উঠে যেয়ে নতুন কোষ গঠনে সাহায্য করে,ব্লকহেডস, হোয়াইট হেডস দূর করে,কোলাজেন প্রডাকশন বৃদ্ধি করে (কোলাজেন মূলত বয়স ধরে রাখতে সাহায্য করে,বয়সের ছাপ পড়তে দেয়না),ত্বকের আদ্রর্তা ধরে রাখতে সাহায্য করে।তবে ফেসিয়াল টিনএজারদের না করানোই ভাল কারন এই বয়সে তাদের ত্বক গঠন হয় ত্বক অনেক সেনসিটিভ ও হয়।১৮ বছর হওয়ার পরই ফেসিয়াল করানো উচিত। তবে বাড়িতে বসে যদি কেউ প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে করে ফেসিয়াল করে তাহলে তো কোন কথাই নেই।বর্তমান করোনার পরিস্থিতিতে পারলারে যাওয়া মোটেও নিরাপদ নয় তাই বাড়িতে বসেই করে নিতে পারেন ফেসিয়াল, তাও আবার ঘরে থাকা উপকরন দিয়ে।তিন ধাপে ফেসিয়াল করা হয়।ক্লিনজিং করা, এক্সফোলিয়েট করা ,ফেসমাস্ক লাগানো।
ক্লিনজিং যেভাবে করবেনঃ প্রথমে ত্বকে মেকআপ থাকলে তা উঠিয়ে নেবেন।তারপর আপনার পছন্দ মত ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নেবেন।এক্ষেত্রে যদি প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করতে চান তো কাঁচা দুধে তুলা ভিজিয়ে মুখে লাগান।পাঁচ মিনিট লাগিয়ে রাখুন।তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন।চাইলে বেসন,দুধ,সামান্য হলুদ মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ মাসাজ করে মুখ ধুয়ে ফেলতে পারেন।
এক্সফোলিয়েট যেভাবে করবেনঃ এই ধাপ টা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এক্সফোলিয়েট করলে ত্বকে মরা চামড়া উঠে যায় ফলে ত্বক মসৃণ হয়,নতুন কোষ তৈরি হয়।তবে অতিরিক্ত এক্সফোলিয়েশন ও ভালো নয়। শুরুতে মুখে ভাপ নিতে পারেন এতে ত্বকের লোমকূপ খুলে যায় ফলে ত্বক ভেতর থেকে পরিস্কার হয়।এজন্য হালকা গরম পানিতে টাওয়াল ভিজিয়ে সেটি মুখে ধরে ভাপ দিন তবে ভাপটা যেন সহনীয় হয়। এই পর্বে চালের গুড়া,লেবুর রস, গুড়া দুধ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন তারপর মুখে লাগিয়ে ৫মিনিটের মত মাসাজ করুন।স্ক্রাবার হিসেবে চালের গুড়া খুবই ভালো।মূলত এর দানা সূক্ষ হওয়ার কারনে খুব সুন্দর ভাবে মরা চামড়া উঠে যায়। আবার চিনি লেবুর রস, মধু ও কিন্তু দারুন স্ক্রাবার।তবে বড় দানাদার চিনি ব্যবহার না করায় ভালো এতে ত্বকের ক্ষতি হয়। মাসজ করার পর মুখ ধুয়ে ফেলুন
ফেসপ্যাক তৈরীঃএই ধাপে ত্বকের ধরন বুঝে প্যাক লাগাবেন।যদি ত্বক শুষ্ক হয় তবে ময়দা,দুধের সর,এক চিমটি হলুদ গুড়া মিশিয়ে নিতে পারেন।ত্বক তৈলাক্ত হলে মুলতানি মাটি,বেসনের গুড়া,গোলাপজল দিয়ে প্যাক তৈরি করে নিতে পারেন।এছাড়াও বেসন,টকদই য়ের প্যাক ও লাগাতে পারেন সৃ ত্বকের জন্য ভালো।প্যাক লাগিয়ে ১৫-২০মিনিট অপেক্ষা করুন তারপর হালকা হাতে ম্যাাসাজ করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। তারপর ময়সচারাইজারা লাগাতে একদম ভুলবেন না কিন্তু।

Continue Reading






গ্রাথোর ফোরাম পোস্ট

MD LOKMAN HOSSAIEN
ব্যাক লিংক পেমেন্ট
Md Golam Mostàfa
Payment