Connect with us
★ Grathor.com এ আপনিও ✍ লেখালেখি করে আয় করুন★Click Here★

ইন্টারনেট

ইন্টারনেট বিবর্তনের ইতিহাস। যা অনেকেরই অজানা।

Arman Hossan

Published

on

আমরা সাকলেই ইন্টারনেট ব্যাবহার করি।কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছি যে এই ইন্টারনেট কিভাবে আসলো?? কি এর ইতিহাস?আজ আমি যে আর্টিকেল টি লিখছি সেখানে আপনারা এই দুটি প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাবেন। প্রচলনের পর থেকে ইন্টারনেট প্রযুক্তি টি বিভিন্ন ধাপ অতিক্রম করেছে ইন্টারনেটের সম্প্রসারণ বিষয়টিকে তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত করা যায়।
১ম পর্যায়ঃ ১৯৬৯সালে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তরের অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে আর্পানেট(আদ্ভান্সড রিসার্চ প্রজেক্ট এজেন্সি নেটওয়ার্ক) নামক প্রজেক্ট এর মাধ্যমে ইন্টারনেটের পতন ঘটে।আর্পানেট পরবর্তীতে আশির দশকের প্রথম ভাগ পর্যন্ত বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য সীমিতভাবে উন্মুক্ত ছিল। ১৯৮২ সালে বিভিন্ন কম্পিউটারের মধ্যে নেটওয়ার্ক সংযোগ স্থাপনে উপযোগী টিসিপি/আইপি(ট্রানস্মিশন কন্ট্রোল প্রটোকল/ ইন্টারনেট প্রটোকল)প্রটোকল উদ্ভাবিত হলে প্রথম আধুনিক ইন্টারনেটের ধারণাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। আরপানেট এ 1983 সালে এই প্রোটোকলের ব্যবহার শুরু হলেও এ পর্যায়ে ইন্টারনেটের সম্প্রসারণ এর গতি ছিল ধীর।২০ টি দেশের সর্বোচ্চ 200 টি কম্পিউটারকে নেটওয়ার্ক প্রটোকলের আওতায় আনা সম্ভব হয়।
২য় পর্যায়ঃ এই পর্যায়ের বিস্তৃতি ছিল পুরো আশির দশক জুড়ে। এ পর্যায়ে ১৯৮৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠিত হয় নেশনাল সাইন্স ফাউন্ডেশন নেটওয়ার্ক বা এন এফ এস নেট এবং এর অধীনে বিভিন্ন গবেষণাপ্রতিষ্ঠান নেটওয়ার্ক উন্নয়নে সংযুক্ত হয়।ফলে ধীরে ধীরে আরপানেটের প্রভাব কমতে থাকে এবং হাজার ১৯৯০ সালে এর কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়।
৩য় পর্যায়ঃ১৯৮৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ইন্টারনেট সার্ভিস প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার বা আই এস পি (ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার) নামে পরিচিতি পায়। এর মাধ্যমেই বাণিজ্যিকভাবে ইন্টারনেট সারা পৃথিবীতে সকলের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত হয়। ইন্টারনেটকে আরো সম্প্রসারিত করার উদ্দেশ্যে ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ইন্টারনেট সোসাইটি বা আই এস ও সি।১৯৯৫ সালে এন এফ এস নেট বন্ধ হয়ে গেলে ইন্টারনেটের বাণিজ্যিক সম্প্রসারণ এর সর্বশেষ বাধা অপসারিত হয়। এ সময় থেকেই ইন্টারনেট সংস্কৃতির বাণিজ্যিক বিস্তারে বিভিন্ন অনলাইন সেবা তথা ইলেকট্রনিক মেইল, ইন্সট্যান্ট মেসেজিং সার্ভিস, ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল বা ভি ও আই পি, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব, ইন্টারনেট ফোরাম, ব্লগ, সামাজিক যোগাযোগ, ই-কমার্স ইত্যাদির প্রচলন শুরু হয়।

Advertisement
13 Comments

13 Comments

  1. Marzia Rahman

    Marzia Rahman

    July 1, 2020 at 11:42 am

    informative post

  2. miraz raj

    miraz raj

    July 1, 2020 at 11:59 am

    e

  3. Maria Hasin Mim

    Maria Hasin Mim

    July 1, 2020 at 1:13 pm

    Thik

  4. Sajib Roy

    Sajib Roy

    July 2, 2020 at 9:07 am

    😍😍😍

  5. Mohammad Imran Hossain

    Mohammad Imran Hossain

    July 4, 2020 at 11:41 am

    ধন্যবাদ

  6. Abdur Rahman Sadik

    Abdur Rahman Sadik

    July 7, 2020 at 10:02 am

    hmm

  7. Utsa Kumer

    Utsa Kumer

    July 7, 2020 at 9:56 pm

    good

  8. Tanvir Hossin

    Tanvir Hossin

    July 8, 2020 at 6:57 am

    Intrst

  9. Sajib Roy

    Sajib Roy

    July 8, 2020 at 11:01 am

    😯😯😯😯

  10. Muktadir Hasan

    Muktadir Hasan

    July 11, 2020 at 8:51 pm

    hmm

  11. Rubayet Ratin

    Rubayet Ratin

    July 12, 2020 at 3:47 pm

    Thanks

You must be logged in to post a comment Login

Leave a Reply

ইন্টারনেট

ইন্টারনেট কি? ইন্টারনেট কি কি কাজে ব্যবহার করা হয়?

mis sumi aktar

Published

on

“আসসালামু আলাইকুম “আশা করি আল্লাহর রহমতে সবাই ভাল আছেন ।আমি আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। আজকে ইন্টারনেট সম্পর্কে কিছু আলোচনা করব।ইন্টারনেট হচ্ছে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে সমস্ত জায়গা গুলোকে সংযুক্তকারী বিশাল ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক। ডিজিটাল যুগে মনে হয় ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক ছাড়া এখন সারা বিশ্বে অচল। ইন্টারনেট আমাদের সময়, অর্থ এবং কষ্ট দূর করতে সক্ষম। ইন্টারনেট তথ্য আমাদের জ্ঞানভান্ডার কে আরও বেশি শক্তিশালী করে তুলেছে। যেকোনো তথ্য না জানার কারণে আমাদের অনেক মুশকিল হতো। আজ সেটা ইন্টারনেটের মাধ্যমে পরিপূর্ণ হলো। আমাদের কিছু জানতে ও শিখতে এই ব্যাপারে ইন্টারনেট খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ইন্টারনেট আসার পরে আমাদের কাজ এত সহজ হয়ে গেছে। যে সব মুহূর্তের মধ্যে করা যায় হাতের নাগালে।আগের যুগে দেশ বিদেশের খবরা খবর রাখার জন্য চিঠি ব্যবহার করা হতো সেখানে তাদের তথ্য পৌঁছানোর জন্য এক থেকে দুই তিন মাস লেগে যেতে। আর আজ সেখানে ইন্টারনেট এনে দিয়েছে সবার ঘরে ঘরে তত্ত্ব পৌঁছানোর সুযোগ সুবিধা।আগের যুগের কোথাও টাকা পাঠানোর জন্য ডাকযোগে টাকা পাঠানো হতো ।সেখানেও এক থেকে দুই মাস সময় লেগে যেত, টাকা সংগ্রহ করতে।আজ সেখানে ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক বিকাশের মাধ্যমে টাকা মিনিটের ভিতরে হাতে চলে আসে।

আমরা যেগুলো তে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারি তা হল-গুগল, ক্রোম, ব্রাউজার, অপরামিনি, ইউটিউব ,ভিটমেট ,ফেসবুক , পেইজ, মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ, ইয়াহু, টুইটার, এগুলোর মাধ্যমে, মোবাইল ,মনিটর ল্যাপটপ, কম্পিউটার দিয়ে কাজ করে থাকি।
আমাদের কোন প্রশ্ন বা তথ্য জানার জন্য ইন্টারনেট মাধ্যমে গুগলে সার্চ দিয়ে সব তথ্য প্রশ্ন জানতে পারি।শুধু তাই নয় এখন বর্তমান যুগে ঘরে অনলাইনে ক্লাস করানো সম্ভব কম্পিউটার, মনিটর ,ল্যাপটপ ,ইত্যাদির মাধ্যমে ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক সংযোগে।

আগের যুগের মানুষ যে কোন খবরা খবর নেওয়ার জন্য টেলিভিশনে বসে থাকতাম এখন ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক দিচ্ছে সবার হাতে হাতে পৌঁছে সমস্ত সংবাদ খবরা খবর গুলো। আর এখন ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের মাধ্যমে মোবাইলে ফেসবুক ভিটমেট সমস্ত ব্রাউজার থেকে খবরা-খবর মিনিটের মধ্যে নিতে পারি।
আরো রয়েছে শপিং করার সুবিধা যেখানে ফেসবুক সকল মিডিয়াতে অনলাইনে শপিং করা যায় ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক সংযোগ এর মাধ্যমে। আর এখন বেকারত্ব দূর হচ্ছে ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের মাধ্যমে, যেমন অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে আমরা কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারি।

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি এখন অনেকটা সামনে এগিয়ে। যেখানে ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক সৃষ্টি করে মানুষকে গড়ে তুলেছেন সচেতন। এখন সবচেয়ে শিক্ষার মাধ্যম হচ্ছে ইন্টারনেট নেটওয়ার্কে আমরা ঘরে বসে সকল প্রকার শিক্ষানীয় বস্তু শিখতে পারি।আর ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের মাধ্যমে আমাদের যেকোনো কিছু শিখার জন্য দক্ষতা অর্জন করা প্রয়োজন। যেকোনো তথ্য খুঁজে বের করতে প্রথমে আমাদের ইন্টারনেট ব্যবহার করার দক্ষতা অর্জন করতে হবে। তথ্য জানার জন্য বা বিনিময়ের জন্য মাধ্যম যেমন- ফেসবুক, ইমেইল ,গুগল, ক্রোম ব্রাউজার, অপেরা মিনি, টুইটার, হোয়াটসঅ্যাপ,মেসেঞ্জার,এগুলো চালানো শিখতে হবে। যাই হোক আজ এখানেই শেষ করছি সবাই ভাল থাকবেন আল্লাহ হাফেজ।

Continue Reading

ইন্টারনেট

বাংলালিংক ও শাওমি ফোন ব্যবহারকারীগন বছরজুড়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করুন একদম ফ্রী…….!

Mojammal Haque

Published

on

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম

আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ,

আশা করি সবাই অনেক অনেক ভালো আছেন। পরিবারের সবাইকে নিয়ে এই সময়টিতে সুরক্ষিত আছেন। আমিও এক রকম ভাল আছি, আলহামদুলিল্লাহ। আশা করি সবাই ঘরেই থাকছেেন। আমরা জানি এটা সত্য যে ঘরে থাকলে তুলনামূলক নেট খরচটা একটুু বেশি হয়।এই বেশি নেট খরচের সময়ে কোটি মানুষের প্রিয় মোবাইল ফোনঅপারেটর বাংলালিংক একটি গরম অফার নিয়ে এসেছে।

 

ইন্টারনেট  ব্যবহারকারীদের মধ্যে কম বেশি সবাই চায় ফ্রী ইন্টারনেট চালাতে। আর সেটা দ্বারা যদি ইন্টারনেটের সকল সেক্টরে ভিউ করা যায় তাহলেতো আর কোনো কথাই নেই। বাংলালিংক ও শাওমির যৌথ উদ্যোগে এমনি একটি অফার ঘোষণা করেছে।অফারটি সম্পপর্কে আমি আপনাদের বলছি।এখনি জেনে নিন।

বাংলালিংক বাংলাদেশের অন্যতম শক্তিশালী টেলিযোগাযোগ সংস্থা। ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত এই সংস্থাটি গ্রাহকদের একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্কের পাশাপাশি কম দামে ইন্টারনেট ও অনেক সময় ফ্রী ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ দিয়ে আসছে তার গ্রাহকদেরকে।সুনামও কুড়িয়েছে বেশ। মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছে এই মোবাইল ফোন অপারেটরটি।বরাবরই তারা সবার চেয়ে আলাদা কিছু অফার দিয়ে থাকে।যা খরচের বেলায়ও অনেক কম। এরই সূত্র ধরে নিয়ে এসেছে ফ্রী ইন্টারনেটের একটি গরম অফার।

দেশের আরেকটি ডিজিটাল ও প্রযুক্তিগত  সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান শাওমি বাংলালিংক গ্রাহকদেরকে এমআই স্টোরে শাওমি-এর সব স্মার্টফোনের সঙ্গে টেলিকম সেবার বিশেষ সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে বিশেষ সেবা প্রদান করছে।আপনারা জানেন বিগত কয়েক বছর ধরে শাওমি ফোন তার সেবা দিয়ে মানুষের অতি নিকটে চলে এসেছে।অফারটি হলো শাওমি ফোনে বাংলালিংক ব্যবহারকারীগন সারা বছর ফ্রী ইন্টারনেট চালাতে পারবেন প্রতি মাসে ১জিবি করে। এই ফ্রী নেট দিয়ে আপনি সকল সাাাইটই কাাজ চালাতে পারবেন। সময়ের আলাদা কোনো বিষয় নেই।আপনার যখন খুশি যে সাইটে খুশি এই নেট আপনি ব্যবহার করতে পারবেন।এখন আমি আপনাকে এই দুর্দান্ত বাংলালিংক ও শাওমিি ফোনের যৌথ উদ্যোগে ইন্টারনেট অফার সম্পর্কে জানাবো।

বছরজুড়ে বাংলালিংক ফ্রী ইন্টারনেট

আপনারXiaomiমোবাইলথেকে*৫০০০*৫২১#ডায়ালকরেপাচ্ছেনপ্রতিমাসে১জিবিকরে ১২ মাসে১২জিবি  ( সম্পূর্ণ ফ্রী  )

উপরের এসএমএস টি বাংলালিংক থেকে পাঠানো। হয়তো আপনাার অনেকের মোবাইলেও মেসেজটি এসেছে। কেউ হয়তো অফারটি নিয়েও থাকতে পারেন আবার কেউ না ও নিতে পারেন। যারা অফারটি এখনো নেননি তারা এই অফারটি নিয়ে নিন। কারন এটি কোনো ফলস অফার নয়। সবাই পায় তবে আপনি কেন নন। জলদি করুন। এমন অফার সব সময় আসে না। সব নিয়ম ঠিক রেখে বা থাকলে আপনি অবশ্যই পাবেন। ইউএসডিটি কোডটি ডায়াল করে নিয়ে নিন আপনার ইন্টার নেট। আর বছর জুড়ে আপনার এবার নো টেনশন।

শর্তসমূহঃ

আপনার শাওমি ফোনটি বৈধ হতে হবে। আপনার বাংলালিংক সিমটি অবশ্যই কোনো বৈধ শাওমি ফোনে একটিভ থাকতে হবে। সিমেরও বৈধতাা থাকা জরুরি। আপনার বাংলালিংক নম্বর দিয়ে শাওমি ফোনে এমআই একাউন্ট থাকতে হবে। শর্তসমূহ ঠিক থাকলে নিয়ম অনুযায়ী কোড ডায়াল করার পর বাংলালিংক কোম্পানি ২৪ ঘন্টা সময় নিতে পারে। এই সময়ের মধ্যে তারা আপনার ফোন, ফোন নম্বর ও ফোনের আইপি, ইএমআই যাচাই করে আপনাকে তাদের অফারের আওতায় আছেন কি নাই তা এসএমএসের মাধ্যমে নিশচিত করবে।

সবাই ভালো থাকবেন। সুরক্ষিত থাকুন। করোনা মহাামারী থেকে মুক্ত থাকতে সকল বিধিি মেনে চলুুন। পরিবারের ছোট বড় সবাইকে মানতে বলুন। সবাই মিলে ভালো থাকুন।মনে রাখবেন সবাই ভালো থাকলেই কেবল আপনি ভালো থাকবেন।তাই সবার উপর নজর রাখুন।বিশেষ করে শিশুর দিকে।কারন তারা এ বিষয়ে কম জানে।সবাই সবার জন্য দোয়া করবেন। আল্লাহ হাফেজ।

Continue Reading

ইন্টারনেট

ইউটিউব এ ভিডিও ভাইরাল করার নিয়ম

sohan mondol

Published

on

আমরা সবাই কম বেশি ইয়উটিউব সম্পর্কে জানি । ইয়উটিউব হচ্ছে একটি ইন্টারনেট এর মাধ্যম ইয়উটিউব এ সবাই চাই  কম বেসি ইনকাম করতে একটা ভাল চেনেল খুলতে এবং ওই ভিডিও ভাইরাল করতে । ভিডিও ভাল করে এডিট না হলে ভিডিও ভাইরাল হয় না । ভিডিও এডিট এর জন্য ব্যবহার করা হয় নানান ধরনের আপস এর মাধ্যমে এর মধ্যে আমি যেটা ভাল মনে করি শেটা হল কাইন মাস্টার এইটা দিয়ে ভিডিও এডিট করলে অনেক সুন্দর ভাবে ভিডিও এডিট করা যায় । ভিডিও এডিট করলেই হয় না । ভিডিও টাইটেল ও ভাল করে দিতে হয় । ভিডিও সুন্দর ও এইচডি হলে আরও মান্মত ভিডিও হয় । ভিডিও কপি করে ভিডিও ছারলে ভিডিও ভিউ হয় না । ভিডিও নিজের মত করে বানাতে হবে তাহলে ভিডিও ভাইরাল হবেই । ভিডিও ছারলে ভিডিও হয় না গুনগত ভিডিও ছারলে ভিডিও সবাই দেখবে ইনশাল্লাহ । আমি আশা করি আপনারা সবাই ভিডিও নিজের মত করে বানাবেন। এবং চ্যানেল এর নামে টা যত ভাল হবে তত ভিডিও ভাইরাল হবে । ইন্টারনেট এ সবচেয়ে ভাল হচ্ছে ইউটিউব আমি আশা করি আপনারা সবাই বুজতে পারছেন ? আমি যা বলেছি ওইভাবে কাজ করলে সবাই ইন্টারনেট এ ফেমাস হতে পারবে। আধুনিক যুগ এ পরিবর্তন এ ইন্টারনেট এ ব্যাপক ভূমিকা রাখছে । এর মাঝে ইন্টারনেট হচ্ছে ইউটিউব এর ববহার । ভিডিও এডিট করে ছাড়লেই ভিডিও কেও দেখে নাহ , এবং ভিডিও দেখতে ভাল হয় না । সুন্দর নামে এবগ সুন্দর ভিডিও বানানো এতে চ্যানেল বিকশিত হয় । এবং ভিউ মনিটাই জেশন করে টাকা ইঙ্কাম করতে পারবেন ।সবাই নিজের মনের মত করে ভিডিও কর আর ইনকাম করে নাও ইন্টারনেট জগত এ থেকে  ইউটিউব এর মাধ্যমে অনেক এ টাকা ইনকাম করছে । আমি চাই আপনি ও বসে না থেকে অনলাইন যব করতে সক্ষম হন ।

 

Continue Reading