Connect with us
★ Grathor.com এ আপনিও ✍ লেখালেখি করে আয় করুন★Click Here★

লাইফস্টাইল

ঘরে বসে পারলারের মত ফেসিয়াল

Sharmin Akter

Published

on

ত্বকের যত্নে ফেসিয়াল অনেক গুরুত্বপূর্ণ। মাসে অন্তত পক্ষে ফেসিয়াল করানো উচিত । ফেসিয়াল করলে ত্বক গভীর থেকে পরিষ্কার হয়,মরা কোষ উঠে যেয়ে নতুন কোষ গঠনে সাহায্য করে,ব্লকহেডস, হোয়াইট হেডস দূর করে,কোলাজেন প্রডাকশন বৃদ্ধি করে (কোলাজেন মূলত বয়স ধরে রাখতে সাহায্য করে,বয়সের ছাপ পড়তে দেয়না),ত্বকের আদ্রর্তা ধরে রাখতে সাহায্য করে।তবে ফেসিয়াল টিনএজারদের না করানোই ভাল কারন এই বয়সে তাদের ত্বক গঠন হয় ত্বক অনেক সেনসিটিভ ও হয়।১৮ বছর হওয়ার পরই ফেসিয়াল করানো উচিত। তবে বাড়িতে বসে যদি কেউ প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে করে ফেসিয়াল করে তাহলে তো কোন কথাই নেই।বর্তমান করোনার পরিস্থিতিতে পারলারে যাওয়া মোটেও নিরাপদ নয় তাই বাড়িতে বসেই করে নিতে পারেন ফেসিয়াল, তাও আবার ঘরে থাকা উপকরন দিয়ে।তিন ধাপে ফেসিয়াল করা হয়।ক্লিনজিং করা, এক্সফোলিয়েট করা ,ফেসমাস্ক লাগানো।
ক্লিনজিং যেভাবে করবেনঃ প্রথমে ত্বকে মেকআপ থাকলে তা উঠিয়ে নেবেন।তারপর আপনার পছন্দ মত ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নেবেন।এক্ষেত্রে যদি প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করতে চান তো কাঁচা দুধে তুলা ভিজিয়ে মুখে লাগান।পাঁচ মিনিট লাগিয়ে রাখুন।তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন।চাইলে বেসন,দুধ,সামান্য হলুদ মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ মাসাজ করে মুখ ধুয়ে ফেলতে পারেন।
এক্সফোলিয়েট যেভাবে করবেনঃ এই ধাপ টা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এক্সফোলিয়েট করলে ত্বকে মরা চামড়া উঠে যায় ফলে ত্বক মসৃণ হয়,নতুন কোষ তৈরি হয়।তবে অতিরিক্ত এক্সফোলিয়েশন ও ভালো নয়। শুরুতে মুখে ভাপ নিতে পারেন এতে ত্বকের লোমকূপ খুলে যায় ফলে ত্বক ভেতর থেকে পরিস্কার হয়।এজন্য হালকা গরম পানিতে টাওয়াল ভিজিয়ে সেটি মুখে ধরে ভাপ দিন তবে ভাপটা যেন সহনীয় হয়। এই পর্বে চালের গুড়া,লেবুর রস, গুড়া দুধ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন তারপর মুখে লাগিয়ে ৫মিনিটের মত মাসাজ করুন।স্ক্রাবার হিসেবে চালের গুড়া খুবই ভালো।মূলত এর দানা সূক্ষ হওয়ার কারনে খুব সুন্দর ভাবে মরা চামড়া উঠে যায়। আবার চিনি লেবুর রস, মধু ও কিন্তু দারুন স্ক্রাবার।তবে বড় দানাদার চিনি ব্যবহার না করায় ভালো এতে ত্বকের ক্ষতি হয়। মাসজ করার পর মুখ ধুয়ে ফেলুন
ফেসপ্যাক তৈরীঃএই ধাপে ত্বকের ধরন বুঝে প্যাক লাগাবেন।যদি ত্বক শুষ্ক হয় তবে ময়দা,দুধের সর,এক চিমটি হলুদ গুড়া মিশিয়ে নিতে পারেন।ত্বক তৈলাক্ত হলে মুলতানি মাটি,বেসনের গুড়া,গোলাপজল দিয়ে প্যাক তৈরি করে নিতে পারেন।এছাড়াও বেসন,টকদই য়ের প্যাক ও লাগাতে পারেন সৃ ত্বকের জন্য ভালো।প্যাক লাগিয়ে ১৫-২০মিনিট অপেক্ষা করুন তারপর হালকা হাতে ম্যাাসাজ করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। তারপর ময়সচারাইজারা লাগাতে একদম ভুলবেন না কিন্তু।

Advertisement
6 Comments
Subscribe
Notify of
6 Comments
Oldest
Newest
Inline Feedbacks
View all comments
Md Golam Mostàfa

Wow! nice app!!

Maria Hasin Mim

thanks for this info

Anisur Rahman

well

Shanta Akter

Nice post

Naeem Hassan

nice

Naeem Hassan

nice

লাইফস্টাইল

গ্লো এন্ড লাভলী সম্পর্কে জানি কি!!

Maria Hasin Mim

Published

on

 

আসসালামু আলাইকুম সুপ্রিয় পাঠক এবং পাঠিকাগন। কেমন আছেন আপনারা সবাই ?আশা করি আপনারা সকলে যে যার অবস্থান থেকে ভালো আছেন এবং সুস্থ আছেন। আপনারা সকলে নিজ নিজ অবস্থানে ভালো থাকুন এবং সুস্থ থাকুন সেই কামনায় ব্যক্ত করি।

সৌন্দর্য নারীরই এক অলংকার স্বরূপ। যুগ যুগ নারীরা সৌন্দর্য চর্চায় তাই নানান ধরণের প্রসাধনী ব্যবহার করার প্রচলন ছিল ,আছে এবং থাকবে। সৌন্দর্য চর্চায় নারীরা প্রাকৃতিক উপাদানের  সাথে সাথে বিভিন্ন ধরণের বাণিজ্যিক পণ্যও ব্যবহার করতে দেখা যায়।তাই সৌন্দর্য চর্চাকারী পন্যের কদর সর্বকালে সকল স্তরে সমাদ্রিত।কিন্তু এইসকল ফেয়ারনেস ক্রিমগুলোর উদ্দেশ্য কি? ক সৌন্দর্য বলতে শুধুমাত্র যে রং ফর্সা হতে হবে তা বুঝায়?আমি আগেও বলেছি সৌন্দর্য নারীর একটি অলংকার তবে কখনোই সৌন্দর্য বলতে নারীকে বুঝায় না।রঙ ফর্সাকারী সৌন্দর্য থেকে মনের সৌন্দর্য সবথেকে বড়ো সৌন্দর্য হিসেবে বিবেচিত।

যুগ যুগ ধরে নারীদের সৌন্দর্য চর্চায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে”ফেয়ার এন্ড লাভলী” ।নারীদের সৌন্দর্য চর্চায় দৈনন্দিন জীবনের অংশ হিসবেএ বিবেচিত হত এই ক্রিম।মুখের রঙ ফর্সাকারী ক্রীম হিসেবে এটি এশিয়ার মহাদেশে সকলের কাছে খুবই পরিচিত এবং জনপ্রিয় ছিল। কিন্তু শুধুমাত্র “রং ফর্সাকরী” শব্দটিতে যুক্ত হওয়ায় এই পণ্যের উপর বর্ণ বৈষম্যের অভিযোগ আনা হয়। আর সেই জন্য প্রশ্ন উঠেছিল অন্যান্য সকল ফেয়ারনেস ক্রিম নিয়েও। অনেকেই ভাষ্যমতে “ফেয়ার এন্ড লাভলী”শব্দটি পুরাই বৈষম্যমূলক। আর চারদিক থেকে নামটি নিয়ে এত্ত সমালোচনা হচ্ছিলো যে সকলের  অভিযোগের ভিত্তিতে তাই ফেয়ার এন্ড লাভলীর নামটি পরিবর্তন করতে বাধ্য হয় কতৃপক্ষ।

গত জুন মাসে এক কৃষ্নাঙ্গের মৃত্যুতে
সারা পৃথিবীব্যাপী বর্ণবাদ আবারো জোরালো হয়ে উঠেছে। তাই যাতে কোনো ধরনের পণ্য কোনো ধরণের বর্ণবাদকে উস্কানি না দিতে পারে সেই জন্য কর্তৃপক্ষ ফেয়ার এন্ড লাভলীর নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম দিয়েছেন “গ্লো  এন্ড লাভলী “।তাদের মতে ফেয়ার ,হোয়াইট এইসব শব্দগুলো সরাসরি বর্ণবাদকে
উস্কনি দিচ্ছে।

ইউনিলিভার এর যোগপোযোগী এই উদ্যোগের কারণে তারা তাদের ভরসা অর্জন করেছে নেটিজেনদের কাছ থেকে। সেই সাথে তাদের এই সময়োপযোগী সিদ্ধান্তের  কারণে সর্বমহলে প্রশংসা পেয়েছে।

ধন্যবাদ সবাইকে।সামনে নতুন কোন টপিক নিয়ে হাজির হবো আপনাদের সামনে।
ঘরে থাকুন
সুস্থ থাকুন

Continue Reading

লাইফস্টাইল

শিংওয়ালা মানুষ | তাঁর ‘কপালে দুটি শিং’ (ভিডিওসহ দেখুন)

Online Desk

Published

on

এক জার্মান নাগরিক সর্বাধিক সংখ্যক দেহের পরিবর্তনের জন্য গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড তৈরি করেছেন। র‌্যাল্ফ বুখহলজ নামে পরিচিত এই ব্যক্তির শরীরে ৫১৬ টি পরিবর্তন হয়েছে। এখন দুটো শিং তার মাথায়।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, জার্মানির বাসিন্দা ওই ব্যক্তি একটি টেলিকম সংস্থায় কর্মরত। ৪০ বছর বয়সে প্রথম ট্যাটু করিয়েছিলেন রল্ফ। সেই সময়ই প্রথম পিয়ার্সিং করান তিনি। এরপর পেরিয়েছে ২০ বছর।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে নাক, ঠোঁট, ভ্রু, কপাল সমস্ত জায়গাতেই একাধিক পিয়ার্সিং করিয়েছেন। দেহে তৈরি করেছেন অজস্র ট্যাটু। তৈরি করেছেন দুইটি ছোট শিং। জানা গিয়েছে, সর্বাধিকবার দেহে ছিদ্র অর্থাৎ পিয়ার্সিং করানোর জন্য ২০১০ সালে গিনেসের তালিকায় নাম ওঠে রল্ফের। পরে ২০১৪ সালে বিমানবন্দর থেকে হোটেলে যাওয়ার পথে সাধারণ মানুষের নজরে পড়ে যান তিনি।

শরীরে এত শিল্প, এত পরিবর্তন আসার পরে কেমন লাগে? রাল্ফের মতে, তার হৃদয় খুব বেশি পরিবর্তন হয়নি। তিনি এখনও 40 বছর আগে যেমন ছিলেন ঠিক তেমনটাই আছেন।

নিচের ভিডিও দেখুন:

Continue Reading

লাইফস্টাইল

ঘরোয়া উপায়ে কীভাবে ত্বক উজ্জ্বল করবেন?

sm muyaj

Published

on

আশা করি সবাই ভালো আছেন।চেহারা শব্দ টি অনেক মূল্যবান। ত্বক সুন্দর করতে কে না ভালোবাসে।এ ত্বক উজ্জ্বল অবস্থা বজায় রাখতে আমরা কতো কষ্ট করি। এ চেহারা ঠিক রাখতে আমরা ব্যবহার করি বিভিন্ন ক্রিম। যা তৈরি হয় বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থ দ্বারা।যা আপনার ত্বকে স্বল্প মেয়াদি থেকে দীর্ঘ মেয়াদি ক্ষতি করতে পারে।আমরা কখনোই আশা করবো না আমাদের ত্বক খারাপ হয়ে যাক।‌‌‌‌‌‌‌‌‌‍‍‌‍‌‍

প্রাকৃতিক পদ্ধতি ত্বকের যত্ন নিলে ত্বকে ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না।তাই আজ আপনাদের কাছে নিয়ে এসছি, ঘরোয়া উপায়ে কী ভাবে আপনার ত্বক উজ্জ্বল করবেন।

এতে ব্যবহারিত হবে লেবু,মধু ও আলু।যা আমাদের ত্বকের ক্ষতি করবে না।তো চলুন জেনে নিই কীভাবে করবেন।লেবু মধু মিষ্টি আলু যে রয়েছে এক অনন্য উপায়ে,যা আমাদের ত্বকের কালচে ভাব দূর করে দেয়।অথ্যাত রোদে পোড়ে ত্বক কালো হয়ে গেলে তা দূর করতে সাহায্য করে।তাই আজ আপনাদের সামনে এ প্রাকৃতিক জাদুর এ বিষয়ে কথা বলবো।তো আর দেরি না করেই শুরু করা যাক।

প্রথমে আপনাকে একটি জাপানি আলু, অর্থাৎ আমাদের দেশে এটা মিষ্টি আলু নামেই বেশি পরিচিত। এটা আপনার কাছে কোনো বাজারে গেলে পেয়ে যাবেন। প্রথমে আলুর খোসা ছাড়িয়ে নিন। আলুটির খোসা ফেলে দিয়ে আলুটিকে কুচি কুচি করে ফেলুন। এবার আলু টির কুচি টুকরো বিলিন্ডার বা অন্য কোনো ভাবে পেষ্ট তৈরি করে নিন ‌। এবার এ পেষ্টের ভিতর আলুর পরিমাণ অনুযায়ী মধু মিশিয়ে নিন।মধু বেশি দিলে সম্যসা নাই।এবার এর ভিতর লেবুর রস মিশিয়ে নিন। লেবুর রস শরীরের কালো দাগ উঠাতে সাহায্য করে। আপনি চাইলে এ পেষ্টের ভিতর হলুদ ও মেশাতে পারেন। তবে হলুদ দিলে সম্যসা নাই।পেষ্ট ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন ‌। এবার আপনার পেষ্ট তৈরি।

পেষ্ট টি আপনার শরীরের যে কোনো অংশে লাগান।তার পর পেষ্ট টি ততক্ষণে খুলবেন না,যতক্ষণ আপনার পেষ্ট টি শুকিয়ে যাই।পেষ্ট টি শুকাতে ৩০ মিনিট সময় লাগতে পারে। পেষ্ট টি শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ধুয়ে ফেলার সময়ে সাবান ব্যবহার করতে প রেন এভাবে প্রায় কয়েক সপ্তাহ করলে ভালো ফল পাবেন। প্রাকৃতিক নিয়মে আপনার ক্ষতি হবে না তাই আপনি যত ইচ্ছে ব্যবহার করতে পারবেন।এত ভালো করে নিয়ম অনুযায়ী কাজ করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে। বিশ্বাস রাখি যে এটি কাজ করবে।

আশা করি আমার পোস্ট টি আপনার কাজে আসবে। ধন্যবাদ।









Continue Reading






গ্রাথোর ফোরাম পোস্ট